artk
সোমবার, সেপ্টেম্বার ২, ২০১৯ ৫:০৬

৬৮ সংস্থার ২ লাখ ১২ হাজার কোটি ‘অলস’ টাকা ব্যাংকে

স্টাফ রিপোর্টার
media

প্রতীকী ছবি

স্বায়ত্তশাসিত, আধা স্বায়ত্তশাসিত, সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষ, পাবলিক নন–ফাইন্যান্সিয়াল করপোরেশনসহ দেশের মোট ৬৮টি স্বশাসিত সংস্থার ২ লাখ ১২ হাজার ১০০ কোটি টাকা ‘অলস’ হিসেবে বিভিন্ন ব্যাংকে জমা আছে। এখন এই সংস্থাগুলোর উদ্বৃত্ত টাকা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। 

স্বায়ত্তশাসিত, আধা স্বায়ত্তশাসিত, সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষ, পাবলিক নন–ফাইন্যান্সিয়াল করপোরেশনসহ দেশের মোট ৬৮টি স্বশাসিত সংস্থার ২ লাখ ১২ হাজার ১০০ কোটি টাকা ‘অলস’ হিসেবে বিভিন্ন ব্যাংকে জমা আছে। এখন এই সংস্থাগুলোর উদ্বৃত্ত টাকা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। 

সোমবার এ জন্য একটি আইনের খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘স্বায়ত্তশাসিত, আধা স্বায়ত্তশাসিত, সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষ, পাবলিক নন–ফাইন্যান্সিয়াল করপোরেশনসহ স্বশাসিত সংস্থাসমূহের উদ্বৃত্ত অর্থ সরকারি কোষাগারে জমা প্রদান আইন, ২০১৯’ -এর খসড়া অনুমোদন দেয়া হয়।

আইনটি চূড়ান্ত হলে ওই সব প্রতিষ্ঠানের পরিচালন ব্যয়সহ প্রয়োজনীয় টাকা রেখে বাকি টাকা সরকারের কোষাগারে জমা নেওয়া হবে। বর্তমানে ওই সব প্রতিষ্ঠানের অর্থ ওই প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছেই আছে।

পরে সংবাদ সম্মেলন করে মন্ত্রিসভার বৈঠকের সিদ্ধান্ত জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। 

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, মোট ৬৮টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বেশি জমা টাকা আছে ২৫টি প্রতিষ্ঠানের কাছে। এর মধ্যে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের কাছে জমা আছে ২১ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা। পেট্রোবাংলার কাছে ১৮ হাজার ২০৪ কোটি টাকা। ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির কাছে আছে ১৩ হাজার ৪৫৪ কোটি টাকা। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের জমা টাকার পরিমাণ ৯ হাজার ৯১৩ কোটি। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) জমা টাকা আছে ৪ হাজার ৩০ কোটি।

তিনি বলেন, প্রস্তাবিত আইন অনুযায়ী এই সংস্থাগুলোর পরিচালন ব্যয়ের টাকা তাদের নিজস্ব তহবিলে থাকবে। তারপর আপত্কালীন ব্যয়ের জন্য পরিচালন ব্যয়ের আরও ২৫ শতাংশ সংরক্ষণ করতে পারবে। প্রতিষ্ঠানের পেনশন ও প্রভিডেন্ট ফান্ডের টাকাও রাখা যাবে। এরপর যে টাকা উদ্বৃত্ত থাকবে, সেটি সরকারি কোষাগারে জমা নেয়া হবে।

বৈঠকে ‘বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন আইন, ২০১৯’ -এর খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রস্তাবিত এই আইন অনুযায়ী বিশেষ পরিস্থিতিতে সড়ক পরিবহনসেবা দেওয়ার বিধান যুক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে হরতাল, পরিবহন ধর্মঘট, জরুরি অবস্থা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, রাষ্ট্রীয় জরুরি প্রয়োজন, বিশ্ব ইজতেমা, মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ ও অনুরূপ পরিস্থিতি হলে বিশেষ সড়ক পরিবহন সেবা। 

ফাইনালে টস জিতে ফিল্ডিংয়ে খুলনা নিষিদ্ধ হলেন কাগিসো রাবাদা সন্ধ্যায় ফাইনাল বিপিএলের নতুন চ্যাম্পিয়নের কে আমিই একমাত্র ঢাকার উন্নয়নে সুনির্দিষ্ট রূপরেখা দিয়েছি: তাপস বিএনপি নির্বাচনকে বিতর্কিত করতে নির্বাচনে অংশ নেয়: শিক্ষামন্ত্রী ইউক্রেনের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ নির্বাচন পেছানোর দাবির অনশনে ঢাবির চার শিক্ষার্থী অসুস্থ পুলিশ কন্ট্রোল রুম ভবন থেকে লাফিয়ে কনস্টেবলের আত্মহত্যা উত্তরায় বেপরোয়া গতির বাস কেড়ে নিলো ২ জনের প্রাণ পুরান ঢাকার ঐতিহ্য পুনরুজ্জীবিত করার অঙ্গীকার তাপসের ধর্মীয় উৎসবের সম্মানে ইসি আলোচনা করে সমাধান করতে পারে: কাদের সৌদি থেকে ১৬ দিনে দেড় হাজার বাংলাদেশি ফেরত ইরানে ৮ বছর পর দোয়ায় নেতৃত্ব দেবেন খামেনি চট্টগ্রামে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২ দ্বিতীয় বিয়ে করতে ইচ্ছুকদের জন্য অভিনব অফার খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে রাজধানীতে বিএনপির বিক্ষোভ মুক্তি পেল অভিনেত্রী স্পর্শিয়ার ‘কাঠবিড়ালী’ ট্রাম্পের অভিশংসন বিচারের আনুষ্ঠানিকতা শুরু ইজতেমায় ৩ মুস‌ল্লির মৃত্যু লাখ টাকায় বিক্রি হলো ১টি মাছ! মানুষ কেন ভয় পায়? শীতে নাক বন্ধ হলে যা করণীয় মেঘনায় দুই লঞ্চের সংঘর্ষ, আহত ৫ যুদ্ধ এড়াতে বিশ্বনেতাদের সঙ্গে সংলাপ চান রুহানি ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু রাজধানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় মামা-ভাগ্নে নিহত ইংরেজি ভাষায় দেশের প্রথম সিনেমা ‘দ্য গ্রেভ’ দেশের আইটি খাতের আয় গার্মেন্টস খাতকে ছাড়িয়ে যাবে: জয় ভারতের পেঁয়াজ আনার বিষয় বিবেচনা করা হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী সংসদে তোপের মুখে মোজাম্মেল