artk
মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বার ১৭, ২০১৯ ১:১৪   |  ২,আশ্বিন ১৪২৬

কক্সবাজার প্রতিনিধি

রোববার, আগষ্ট ২৫, ২০১৯ ৮:৫৪

ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে রোহিঙ্গারা

media
দুই বছরে ৪৩ হত্যা মামলার আসামি : ৪৭১টি মামলায় আসামি ১ হাজার ৮৮ জন ২ শতাধিক মাদক মামলার পাশাপাশি রয়েছে মানবপাচারের মামলাও

রোহিঙ্গা সংকটের দুবছর পূর্ণ হলো রোববার। এই দীর্ঘ সময়ে নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়েছে মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রাখাইনের মুসলিম জনগোষ্ঠী।

ভয়াবহ অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে রোহিঙ্গারা। বেড়েই চলছে তাদের অপরাধ প্রবণতা। ক্রমেই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে নিজ দেশ থেকে বিতাড়িত এই জাতিগোষ্ঠী। 

গত দুই বছরে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপরাধে চারশ ৭১টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে হত্যাকাণ্ড ৪৩টি। রয়েছে ধর্ষণ, অপহরণ, মাদক চোরাচালানের অভিযোগও।

বৃহস্পতিবার রাতে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমুরা এলাকায় হত্যা করা হয় স্থানীয় যুবলীগ নেতা ওমর ফারুককে। তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। এই হত্যার সাথে রোহিঙ্গা অস্ত্রধারীরা জড়িত বলে জানিয়েছে পুলিশ। প্রতিবাদে জাদিমুরা ক্যাম্পের আশেপাশে ভাঙচুর ও সড়ক অবরোধ করে স্থানীয়রা।

এই ঘটনার পর শুক্রবার গভীর রাতে টেকনাফের জাদিমুরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মোহাম্মদ শাহ ও মো. শুক্কুর নামে দুই রোহিঙ্গা শরণার্থী নিহত হন।

এ প্রসঙ্গে টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার দাস জানান, ওই দুই জন যুবলীগ নেতা ওমর ফারুক হত্যা মামলার আসামি। তারা জাদিমুরা ক্যাম্পে অবস্থান করছে খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালালে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়লে ওই দুই জন নিহত হয়। তাদের অবস্থান থেকে দুটি দেশে তৈরি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

এর আগে গত ২২ আগস্ট বিজিবির সাথে বন্দুকযুদ্ধে দুই জন রোহিঙ্গা শরণার্থী নিহত হন। তারা ইয়াবার চালান নিয়ে আসছিলে বলে জানিয়েছিল বিজিবি। মায়ানমারের রাখাইনে নিপীড়নের শিকার হয়ে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট থেকে নতুন করে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা বাংলাদেশে আশা শুরু করে। এই ধাপের আট লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা আসে কক্সবাজারে। তারা বিভিন্ন ক্যাম্পে অবস্থান করছে।

এ ব্যাপারে কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসেন বলেন, “সম্প্রতি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মধ্যে অপরাধ প্রবণতা বাড়ছে। গত দুই বছরে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে চারশ ৭১টি মামলা হয়েছে। আর এইসব মামলায় আসামির সংখ্যা এক হাজার ৮৮ জন।”

দুই শতাধিক মাদক চোরাচালান মামলা রয়েছে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিরুদ্ধে। মানব পাচারের মামলাও রয়েছে চারটি। এছাড়া অস্ত্র, ধর্ষণ, ধর্ষণচেষ্টা, নারী নির্যাতন, অপহরণ ও পুলিশের ওপর হামলার মামলাও রয়েছে। কিছু রোহিঙ্গা নারীর বিরুদ্ধে যৌন ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ার অভিযোগও রয়েছে।

পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেনের মতে, রোহিঙ্গারা সবচেয়ে বেশি মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছে। ইয়াবার উৎস যেহেতু মিয়ানমার, আর তারা এসেছেনও মিয়ানমার থেকে, তাই এই ব্যবসায় তাদের যোগাযোগ ভালো। সে কারণেই তারা ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ছে বলে মনে হয়।

তবে রোহিঙ্গাদের এই অপরাধ প্রবণতা তাদের নিজেদের মধ্যেই বেশি বলে তিনি জানান। তিনি বলেন, “স্থানীয় সাধারণ মানুষের সাথে তাদের তেমন বিরোধ নেই। দুই বছরে যে ৪৩ জনকে রোহিঙ্গারা হত্যা করেছে, তাদের মধ্যে বৃহস্পতিবার নিহত যুবলীগ নেতা ওমর ফারুকই স্থানীয় বাংলাদেশি। বাকি ৪২ জনই রোহিঙ্গা শরণার্থী।

তিনি আরো বলেন, “তাকে (ফারুক) রোহিঙ্গা ডাকাতরা হত্যা করেছে। ফারুক ক্যাম্পগুলোতে ঠিকাদারির কাজ করত। আমরা ধারণা করছি, রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা আধিপত্যের দ্বন্দ্বে তাকে হত্যা করেছে।”

কুতুপালং ক্যাম্পের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মুখপাত্র মো. ইউনূস আরমান বলেন, “আমাদের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ক্ষুদ্র একটি অংশের অপরাধে জড়িয়ে পড়া অত্যন্ত দুঃখজনক। এটা আমাদেরও বিব্রত করে। কিন্তু যারা মাদক পাচারসহ নানা অপরাধ করছেন, তাদের মূলত স্থানীয় সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীরা ব্যবহার করছে। আর যেসব রোহিঙ্গা এসব অপরাধ করছে তারা ক্যাম্পে থাকে না। ক্যাম্পের নম্বর থাকলেও তারা বাইরে থাকে। তবে অপরাধ করার পর অনেকে ক্যাম্পে আশ্রয় নেয়।”

মো. ইউনূস আরমানের অভিযোগ, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দারিদ্র্যের সুযোগ নিয়ে তাদের ইয়াবা পাচারের ক্যারিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ীরা। তিনি এই বলেন, “কক্সবাজারে মাদক ব্যবসা করে কারা বিলাসবহুল বাড়ি ও সম্পদের মালিক তা তো সবাই জানে। স্থানীয় সন্ত্রাসী গ্রুপগুলোও একইভাবে গরিব রোহিঙ্গাদের ব্যবহার করে। হত্যাকাণ্ডগুলোও ক্যাম্পের বাইরে হয়েছে।”

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসেন বলছেন, “রোহিঙ্গাদের অপরাধ প্রবণতা বাড়লেও নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়নি। রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরগুলোতে নয়টি পুলিশ ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। ক্যাম্পগুলোতে ১১শ পুলিশ ফোর্স সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছেন।”

১০ কোটি টাকার মামালাম পাহারায় ব্যয় ৪৬ কোটি শিশুরা কুশিক্ষা ও অপসংস্কৃতির রোষানলে আবদ্ধ -ফখরুল শোভনের দুর্দিনে পাশে থাকতে চায় জারিন দিয়া ইতালিতে কুড়িয়ে পাওয়া মানিব্যাগ ফেরত দিয়ে আলোচনায় বাংলাদেশি তরুণ ফাঁসির রায় শুনে আসামির হাসি বাসচাপায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত যুবকের কান কেটে নিয়ে প্রতিশোধ, প্রকাশ্যে উল্লাস নিখোঁজের দুদিন পর শিশুর মরদেহ উদ্ধার, আটক ১ সঠিক তদন্ত হলে সম্পাদক পদে পুনর্বহালের প্রত্যাশা রাব্বানীর ভক্তদের বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ মেহজাবিনের ইয়াবা ভাগাভাগি : পাঁচ পুলিশ রিমান্ডে ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গা : ইসি কর্মীসহ আটক ৩ উন্নয়নের পাইপ লাইনে দুর্নীতির ছিদ্র: বারকাত জবি ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগ হাসপাতালের ফ্যান খুলে পড়ে রোগী আহত ডাকসু থেকে আমার পদত্যাগের দাবিটি অবান্তর: রাব্বানী সুরমার তীর পরিষ্কারে নেমেছেন ব্রিটিশ ৩ এমপি নতুন ভিডিও প্রকাশ: রিফাতকে একাই হাসপাতালে নেন মিন্নি এবার আমিরাতের জাহাজ আটকে দিল ইরান সৌদিতে যে কোনো মুহূর্তে ফের হামলা হতে পারে: ইয়েমেন সীতাকুণ্ডে ২ কারখানাকে সাড়ে ২৫ লাখ টাকা জরিমানা সৌদি তেল স্থাপনায় হামলা: যা বলল চীন কোনো রোহিঙ্গাই এনআইডি কার্ড পাননি: এনআইডি ডিজি শহিদুল আলমকে ভিসা দিল না ভারত অফিসে আটকে রেখে শ্রমিককে মারধরের অভিযোগ যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে সম্পাদক পরিষদ সভাপতি মাহফুজ আনাম, সা. সম্পাদক নঈম নিজাম এবার শুরু হচ্ছে ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের চট্টগ্রাম পর্ব প্রধানমন্ত্রী পেলেন ড. কালাম স্মৃতিপদক অর্থপাচারকারী ধরতে এফবিআইয়ের সহযোগিতা চাইলেন দুদক চেয়ারম্যান জাতীয় পার্টির সাংসদ জিন্নাহকে সম্পদের নোটিশ