artk

স্টাফ রিপোর্টার

শুক্রবার, আগষ্ট ২৩, ২০১৯ ৭:৫১

রোহিঙ্গ প্রত্যাবাসনে সরকার কূটনৈতিকভাবে ব্যর্থ: রিজভী

media

বিএনপির এ নেতা বলেন, এই সরকারের পতন তরান্বিত করতে হবে, গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হবে। গণতন্ত্রের প্রতীক দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির মধ্য দিয়েই এই দেশের মানুষ মুক্তভাবে কথা বলা নিশ্চিত হবে।’

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সরকার কূটনৈতিকভাবে ব্যর্থ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

শুক্রবার জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল ও জাতীয়তবাদী মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মের উদ্যোগে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে মিছিলের পর সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে এ মন্তব্য করেন তিনি।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের নির্ধারিত কর্মসূচির দিনে বৃহস্পতিবার একজন রোহিঙ্গাও নিজ দেশে ফেরত না যাওয়ার প্রসঙ্গ টেনে রিজভী বলেন, ‘রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সরকার কিচ্ছু করতে পারেনি, কিছুই পারেনি। এদের বিষয়ে এতদিন হয়ে গেল আপনারা (সরকার) একজন মানুষকেও ফেরত পাঠাতে পারলেন না। এই ব্যর্থতা তো চরম ব্যর্থতা। আপনারা কূটনৈতিকভাবে ব্যর্থ হয়েছেন।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেনের বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘একজনকেও আপনারা প্রত্যাবাসন করতে পারেননি। তারপর আবার ধমক দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বাহ!’

‘এত দিন ধরে....। আপনাদের নাকি এত বন্ধু আছে, তারা কেউ কিছু করতে পারল না আপনাদের জন্য। অথচ এই যে এতগুলো মানুষের চাপ বাংলাদেশের সহ্য করতে হচ্ছে।’

সরকারের উদ্দেশে রিজভী বলেন, ‘আপনারা কূটনৈতিকভাবেই ব্যর্থ শুধু নয়, আপনারা অর্থনৈতিকভাবে ব্যর্থ, আপনারা আইন-শৃঙ্খলা পরিচালনা করতে ব্যর্থ। তাই চারদিকে রক্ত ঝরছে, লাশ পড়ছে, নারী-শিশুরা নির্যাতিত হচ্ছে।’

বিএনপির এ নেতা বলেন, এই সরকারের পতন তরান্বিত করতে হবে, গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হবে। গণতন্ত্রের প্রতীক দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির মধ্য দিয়েই এই দেশের মানুষ মুক্তভাবে কথা বলা নিশ্চিত হবে।’

এর আগে সাড়ে ১১টায় নয়া পল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাত ও সাধারণ সম্পাদক সাদেক আহমেদ খানের নেতৃত্বে নেতাকর্মীদের নিয়ে মিছিল করেন রিজভী। এ সময় খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে নেতাকর্মীরা মুহুর্মুহু স্লোগান দেন।

প্রসঙ্গত, ব্যাপক প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও রোহিঙ্গাদের অনাগ্রহের কারণে শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হয়েছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরুর কর্মসূচি। নাগরিকত্ব, নিরাপত্তা, বসতভিটাসহ সম্পদ ফেরত ও নিপীড়নের বিচার নিশ্চিত না হলে রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফিরে যাবে না বলে আগের অবস্থানেই অনঢ় রয়েছে।

ইদলিবে সরকার বিরোধী হামলায় সিরিয়ার ৪০ সেনা নিহত খালি পেটে যেসব খাবার খাওয়া ঠিক নয় হোয়াটসঅ্যাপে যুক্ত হল ডার্ক মোড পাবনায় আওয়ামী নেতার বিরুদ্ধে বাবার জিডি ৬৪ জেলায় ৪৯ হাজার নদী দখলদার: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্র ঢাবির বিশেষ সমাবর্তন ৫ সেপ্টেম্বর আমরা দেশকে জঙ্গিবাদের হাত থেকে মুক্ত করতে চাই: প্রধানমন্ত্রী চীনাদের সাপ খাওয়ার অভ্যাস থেকেই ছড়িয়েছে করোনা ভাইরাস! পলিন কাউসারের ‘আমি তো পাইনি মেঘের দেখা’ আইসিজের রায় বিশ্বের মানবাধিকারকর্মীদের জন্য মাইলফলক: পররাষ্ট্রমন্ত্রী হারপিক খেয়ে খুলনায় এমপি নারায়ণ চন্দ্র চন্দের পুত্রের আত্মহত্যা মার্কেন্টাইল ব্যাংকের চেয়ারম্যানসহ তিন জনের বিরুদ্ধে মামলার অনুমোদন নগরবাসী নিয়ে বিএনপির কোনো পরিকল্পনা নেই: তাপস জিরো টলারেন্স জনপ্রিয় হওয়ার একটি স্লোগান: এনবিআর চেয়ারম্যান আইপিও আসার আগে প্রতিবেদন করুন: সাংবাদিকদের ডিএসই পরিচালক অস্ট্রেলিয়ায় এয়ার ট্যাঙ্ক বিধ্বস্ত হয়ে নিহত ৩ বাংলা একাডেমি পুরস্কার পেলেন ১০ সাহিত্যিক ‘ছাত্রলীগকে দিয়ে দুঃশাসনের বিরুদ্ধে গণজাগরণ দাবিয়ে রাখা যাবে না’ তাবিথের বিরুদ্ধে সম্পদ গোপনের অভিযোগ ইসিতে নতুন শিক্ষাবর্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা সীমান্তে বিএসএফ’র গুলিতে ৪ বাংলাদেশি নিহত রাখাইনে সহিংসতা বন্ধে জরুরি ব্যবস্থা নেওয়ার আদেশ আইসিজের সৌদি আরব থেকে ফিরলেন আরও ২১৭ বাংলাদেশি রোহিঙ্গা ইস্যু আন্তর্জাতিকীকরণে প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে: জাতিসংঘ রাষ্ট্রদূত ভিপি নূরকে কেন পাসপোর্ট দেয়া হবে না: হাইকোর্ট ভোটের নিরপেক্ষ পরিবেশ নেই: ফখরুল রক্তকোষের সাহায্যে সারিয়ে তোলা যাবে ক্যান্সার চবিতে ছাত্রলীগের অবরোধ এক ধাপ উন্নতিতেও দুর্নীতি কমেনি: টিআইবি ফেনীর পৌর মেয়রকে দুদকে তলব