artk
রোববার, সেপ্টেম্বার ২২, ২০১৯ ৮:৫৫   |  ৭,আশ্বিন ১৪২৬
বুধবার, আগষ্ট ২১, ২০১৯ ১০:৩৯

জিয়াউর রহমান মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না, চ্যালেঞ্জ আমুর

স্টাফ রিপোর্টার
media

ফাইল ফটো

মুক্তিযুদ্ধের জেড ফোর্সের অধিনায়ক ও সেক্টর কমান্ডার তৎকালীন মেজর জিয়াউর রহমান মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না বলে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আমির হোসেন আমু। 

মুক্তিযুদ্ধের জেড ফোর্সের অধিনায়ক ও সেক্টর কমান্ডার তৎকালীন মেজর জিয়াউর রহমান মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না বলে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আমির হোসেন আমু। 

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় হতাহতদের স্মরণে আজ বুধবার রাজধানীর খামারবাড়ির কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় আমির হোসেন আমু এ কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের আয়োজনে ওই আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দলের কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য দেন।

সাবেক শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, ‘জিয়া জেড ফোর্সের কমান্ডার ছিলেন, সেক্টর কমান্ডার ছিলেন না। এটা আমাদের দেশের অনেকের ভুল ধারণা, নো, জিয়াউর রহমান কখনই সেক্টর কমান্ডার ছিলেন না। তিনি জেড ফোর্সের কমান্ডার ছিলেন। 

তিনি বলেন, জিয়া উর্দুতে কথা বলতেন তার পরিবারের ভেতরে। আজকে ফারুক রশিদের কথা বলা হয়, তারা কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের শেষ সময়ে পাকিস্তান থেকে এসে যোগ দিয়েছে আমাদের সেনাবাহিনীতে। তাদের মূল লক্ষ্য উদ্দেশ্য ছিল স্বাধীনতা যাতে না আসে। কিন্তু দেশ স্বাধীন হওয়ার পর স্বাধীনতার মূল স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করা হয়। বাদ ছিলেন জননেত্রী শেখ হাসিনা। যেহেতু তিনি ১৫ আগস্ট দেশে ছিলেন না, বাইরে ছিলেন। দেশে এসে আওয়ামী লীগ ও দেশের হাল ধরেছেন।’

আমির হোসেন আমু বলেন, ‘একটা কথা আছে, নিয়ত গুণে বরকত। তার (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) নিয়ত ছিল দেশে এসে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করা। ১৬ কোটি মানুষের সাথে তার পরিবার একান্নবর্তী হয়ে গেছে বলেই তিনি বারবার হামলার পরও বেঁচে যাচ্ছেন। যারা তাকে হত্যার জন্য বারবার চেষ্টা করছে, তারা আজ জনবিচ্ছিন্ন। তাদের দিকে তাকিয়েই আওয়ামী লীগকে আরো জনসম্পৃক্ত হয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে।’

আওয়ামী লীগের এ নেতা আরো বলেন, ‘২১ বছর তারা দেশের বিভিন্ন জায়গায় আওয়ামী লীগের হাজার হাজার নেতাকর্মীকে হত্যা করলেও ৯৬-তে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর তাদের ওপর একটি ফুলের আঁচরও দেয় নাই। আওয়ামী লীগ একটি বিজয় মিছিলও করে নাই। 

তিনি বলেন, ২০০১ সালে ক্ষমতায় এসে ভুলে গেল আওয়ামী লীগের কর্মকাণ্ডগুলো। তারা আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংঠনের ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের  ৩৩ হাজার নেতাকর্মীকে হত্যা করে। মা-বোনের সম্ভ্রম নষ্ট করল, যেভাবে একাত্তরে করা হয়েছিল। তারা যদি শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে পারত, তাহলে এ দেশের তিন লাখ লোককে হত্যা করা হতো। তাই আমরা মনে করি, এ দেশকে রক্ষার জন্য শেখ হাসিনা বারবার প্রাণে বেঁচে গেছেন।

নিজেদের বানানো ভয়ংকর ট্যাংক প্রদর্শন করলো ইরান চাঁদাবাজির অভিযোগে আওয়ামী লীগ নেত্রী বহিষ্কার পৃথিবীতে সব চেয়ে সুখী মানুষ মুসলিমরা বিএনপির ‘টপ টু বটম’ সবার পদত্যাগ করা উচিত: কাদের বিয়ে করে বরকে নিয়ে বাড়ি ফিরলেন কনে ফাইনালে বাংলাদেশ স্কোয়াডে কোনো পরিবর্তন নেই তোর আব্বারে ভিসি বানিয়ে দেই: শিক্ষার্থীদের প্রতি ভিসি দুই মাস পর অনুশীলনে ফিরলেন তামিম দুর্নীতির বিরোধী অভিযানে দল-মত দেখা হচ্ছে না: তথ্যমন্ত্রী ঢাবি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের নবীনবরণ রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সরকার জোরালোভাবে কাজ করছে: কাদের জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের নতুন চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম নিরাপত্তা চেয়ে সিলেটের ৫৬ সাংবাদিকের জিডি পুঁজিবাজারে তারল্য কাটাতে অর্থ দিবে বাংলাদেশ ব্যাংক বিভিন্ন ক্লাবে চলমান অভিযানে ক্ষুব্ধ হুইপ শামশুল মতিঝিলের চার ক্লাবে ক্যাসিনো, জুয়ার আখড়া, মদ-সিসা ‘১০ কোটি টাকা দিচ্ছি আমাকে ছেড়ে দিন’ খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ঢাবিতে ছাত্রদলের মিছিল দেশটা জুয়াড়িদের হয়ে গেছে: মির্জা ফখরুল ক্যান্সারে ভুগছেন এন্ড্রু কিশোর উপনির্বাচন পেছানোর দাবিতে রংপুরে অনশন যুক্তরাষ্ট্রে স্পোর্টস বারে বন্ধুক হামলা, নিহত ২ নির্দেশনা মেনে ফেসবুক ব্যবহার করতে হবে বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের ক্যাসিনো: মতিঝিলে ৪ ক্লাবে অভিযান মাদারীপুরে চালককে হত্যা করে অটো ছিনতাই ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের সভাপতি কাওছার যুক্তরাষ্ট্রে নারায়ণগঞ্জে ডিবির গুলিতে পোশাক শ্রমিক আহত ১৫ বছর বয়সে ধর্ষিত হয়ে বাড়ি ছেড়েছেন নায়িকা বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলবেন না ধোনি সদলবলে মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রদলের সভাপতি-সম্পাদক