artk
শনিবার, ডিসেম্বার ৭, ২০১৯ ১০:৪৬   |  ২৩,অগ্রহায়ণ ১৪২৬

সাখাওয়াত প্রিন্স

শুক্রবার, আগষ্ট ২, ২০১৯ ১১:৫৪

ময়লার ভাগাড়ে শিক্ষকরা, সরকারের সাড়া নেই

media
তিন শতাধিক শিক্ষক অসুস্থ হয়েছেন। ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন ২০ জন, যার মধ্যে জাকির হোসেন মল্লিক নামে এক শিক্ষক মারা গেলেও আন্দোলনের আদৌ কি সুসংবাদ আসবে তার উত্তর দিতে পারছেন না শিক্ষকরা।

রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের পশ্চিম পাশে রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে দীর্ঘ ৪৭ দিন ধরে ফুটপাতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন বাংলাদেশ বেসরকারি প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির ব্যানারে বিভিন্ন জেলা থেকে আসা কয়েকশ শিক্ষক। তাদের সঙ্গে আমরণ অনশনে বসে আছেন ছোট ছোট কোমলমতি শিশুরাও। এখন পর্যন্ত তিন শতাধিক শিক্ষক অসুস্থ হয়েছেন। ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন ২০ জন, যার মধ্যে জাকির হোসেন মল্লিক নামে এক শিক্ষক মারা গেলেও আন্দোলনের আদৌ কি সুসংবাদ আসবে তার উত্তর দিতে পারছেন না শিক্ষকরা।

একদিকে রাজধানী জুড়ে এডিশ বাহিত ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপ। অন্যদিক পুরো জুলাই মাসই এই রোদ এই বৃষ্টি। তারই মাঝে মশা জন্মানোর প্রধান উৎস ম্যানহোলের ময়লা অবর্জনার পাশে ফুটপাতে মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে অবস্থান করছে শিক্ষকরা। কিন্তু এখন পর্যন্ত এ যৌক্তিক আন্দোলনে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো সাড়া না পেয়ে খুবই হতাশায় দিন কাটছে শিক্ষকদের। 

চলমান আন্দোলনে জামালপুরে থেকে এসেছেন শিক্ষক ইলিয়াস হোসেন। চিন্তায় মগ্ন হয়ে বসে আছেন পলিথিনের তাঁবুর নিচে। দিনের সুর্যটা ঠিক মাথার ওপরে থাকায় শরীর বেয়ে ঘাম ঝরছে। ‘কেমন আছেন, আন্দোলনের সময় কেমন কাটছে’- কাছে গিয়ে এই প্রতিবেদক জিজ্ঞেস করলে তিনি ঘাম মুচছেন আর বলছেন, “খুবই ভালোই আছি! অনেক সুখেই আছি। দেখছেন তো দীর্ঘ ৪৬ দিন ধরে রোদে পুড়ে বৃষ্টিতে ভিজে ভালোই কাটছে।”

ইলিয়াস হোসেন অন্যদিকে মুখ করে কথাগুলো বলছিলেন।

হঠাৎ চোখের দিকে চেয়ে আর কোনো প্রশ্ন আসছে না। দুই চোখের কোণায় অশ্রু ছলছল করছে তার। পুনরায় প্রশ্ন না করতেই বললেন, “ছয় সদস্যের সংসার অথচ পিতা-মাতা স্ত্রী, ছেলে-মেয়েদের রেখে আমরণ অনশনে আছি। কিছুদিন পরেই কোরবানির ঈদ। আমাদের কি আর ঈদ আছে? হয় বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করে ফিরবো না হয় মৃতদেহের কফিনে ফিরবো।”

শিক্ষক ইলিয়াসের পাশে বসে আছেন রংপুর থেকে আসা আব্দুল মান্নান। ১৯৯৯ সাল থেকে চাকরি করছেন তিন। দায়িত্বে রয়েছের রংপুর বেসরকারি প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির দপ্তর সম্পাদক হিসেবে। “আর কতো দিন আন্দোলন চালিয়ে যাবেন?” এই প্রশ্নের উত্তরে জানান, যত দিন পর্যান্ত প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ করা না হবে ততদিন ধরে এখানেই অবস্থান করবেন।

কোরবানির ঈদ কিভাবে কাটবে এমন প্রশ্নে বললেন, “আমাদের ভাগ্যে কুরবানি নেই। ছেলে-মেয়েদের একটি নতুন পোশাক দিতে পারছি না কিভাবে কোরবানি দিব। আমরা এখানেই রাস্তায় আমাদের মধ্যে থেকে ইমাম করে নামাজ আদায় করবো।”

তিনি আরো বলেন, “জাতীয়  ঈদগাঁও খুব কাছে হলেও সেখানে নামাজ আদায় করবো না কারণ তাদের হচ্ছে সুখের নামাজ আর আমাদের দুঃখের নামাজ।”

জানা যায়, গত ২০১২ সালের ২৭ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকল বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণের আওতায় আনা হবে বলে ঘোষণা দেন। তারই ধারাবাহিকতায় প্রথম ধাপে ২২ হাজার ৯৯১টি প্রতিষ্ঠান, দ্বিতীয় ধাপে ১৭১৯টি প্রতিষ্ঠান, তৃতীয় ধাপে ৫৩৩টিসহ মোট ২৫ হাজার দুইশ ৪৩টি প্রতিষ্ঠানকে জাতীয়করণ করা হয়। তবে তারপরও চার হাজার ১৫৯ টি প্রতিষ্ঠান বেসরকারি থেকে যায়।

অথচ প্রধানমন্ত্রীর শর্ত অনুযায়ী চার হাজার ১৫৯টি প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণের সুবিধা পাওয়ার যোগ্য হওয়ার পরও প্রতিষ্ঠানগুলো বঞ্চিত হওয়ায় রাজপথই দাবি আদায়ের উপায় দেখছেন তারা। তাই বঞ্চিত শিক্ষকরা প্রাণ বাজি রেখে আমরণ অনশনে বসে পড়েন। তাদের দাবি জাতীয়করণের ঘোষণা না পাওয়া পর্যান্ত অনশন অব্যাহত থাকবে।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো জাতীয়করণের সম্ভাবনা রয়েছে কিনা- এমন প্রশ্নে সংগঠনের মহাসচিব কামাল হোসেন বলেন, “সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে আর কোনো প্রতিষ্ঠানকে জাতীয়করণ করা হবে না অথচ তৎকালীন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান প্রায় ১৩শ বিদ্যালয় জাতীয়করণের জন্য জেলা ও উপজেলা যাচাই-বাছাই কমিটিকে নির্দেশ কেন দিলেন? তারই আলোকে সকল কার্ক্রম সম্পন্ন হয়ে কাগজপত্র মন্ত্রণালয়ে সংরক্ষিত রয়েছে।”

সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক আ.স.ম জাফর ইকবাল বলেন, “তৃতীয় ধাপের বিদ্যালয়গুলোর সমপর্যায়ে যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও তৎকালীন কিছু কর্মকর্তা কর্মস্থলে না থাকায় কিছু কর্মকর্তার অবহেলার কারণে আমাদের বিদ্যালয়গুলোকে বঞ্চিত করে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা উপেক্ষা করা হয়েছে। আমরা জাতীয়করণের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছি। অথচ আমদের বিদ্যালয়সমূহ ধারাবাহিকভাবে ২০০৯ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যান্ত প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে আসছে।

এবিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির জানান, সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী- এ মুহূর্তে কোনো বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণের চিন্তা সরকারের নেই। তবে তিনি তাও বলেন, “বাদপড়া কত বিদ্যালয় রয়েছে এর সঠিক সংখ্যা বের করে একটি প্রতিবেদন তৈরি করতে সচিবকে বলেছি। সে তালিকা আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরবো। তিনি দেশে ফিরলে প্রস্তাবটি উন্মাপন করা হবে। তিনি যদি যৌক্তিক মনে করেন সে অসুযায়ী তিনি বিবেচনায় নেবেন বলে আমরা আশা করি।”

ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ কাশ্মীরের হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীদের অ্যাকাউন্ট বাতিল অভিশংসনের দ্বারপ্রান্তে ট্রাম্প মুন্সিগঞ্জে লঞ্চের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ২০ বাংলাদেশের ১৭ জেলেকে ফেরত দিয়েছে মিয়ানমার বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব বাতিলের দাবিতে গণস্বাক্ষর শনিবার বাঁশখালীতে জেলের জালে বিশাল হোয়েল শার্ক! সিলেট আ.লীগের নেতৃত্ব হারালেন কামরান পৃথিবীর অনেক দেশের তুলনায় আমরা মেধাবী: তথ্যমন্ত্রী ধর্মঘটে অচল অবস্থা বিরাজ করছে ফ্রান্সে চট্টগ্রামে এবার থানায় বিক্রি হবে পেঁয়াজ ভারতের অবদান ছাড়া মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস অসম্পূর্ণ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী শিকাগোর অফিস-আদালতে বাংলা ভাষা! খালেদার স্বাস্থ্য বিষয়ে নিরপেক্ষ প্রতিবেদন নিয়ে ফখরুলের সংশয় ১৭ জেলেকে আটক করেছে মিয়ানমার উল্টোপথের বাসের চাকায় পিষ্ট পথচারী অবশেষে বিয়ের পিঁড়িতে মিথিলা-সৃজিত রুম্পার মৃত্যুর ধোঁয়াশা কাটেনি ১ জন ছাড়া অন্য যেকোনো পদে পরিবর্তন: কাদের আপিল বিভাগে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সরকার: মন্ত্রী বীরত্বে পদক পাচ্ছেন ডিজিসহ বিজিবির ৬০ সদস্য আইএস এর সেই টুপি খুঁজে পাচ্ছে না পুলিশ নামাজ পড়লে সুস্থ থাকা যায়: মার্কিন গবেষণা মৌলভীবাজারে ৪শ একর জমিতে কমলার চাষ ২০১৯ সালের সেরা অ্যাপ কল অফ ডিউটি আ.লীগে এখন কর্মীর চেয়ে নেতার সংখ্যা বেশি: কাদের প্রকৌশল শিক্ষায়ও সৃজনশীলতার প্রচুর সুযোগ রয়েছে: রাষ্ট্রপতি ‘সুদের হার কমেনি, ১১ মাস কী করলেন অর্থমন্ত্রী’ ৬ রানে অলআউট মালদ্বীপ পিরোজপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ২ জনের মৃত্যু