artk
সোমবার, আগষ্ট ১৯, ২০১৯ ৩:০৩   |  ৪,ভাদ্র ১৪২৬

নিউজ ডেস্ক

শনিবার, জুলাই ২০, ২০১৯ ৭:৩৭

ইঞ্জিনে পাখির বাসা, দেড়মাস বসে থাকলেন ট্রাকচালক

media

বাড়ির সামনে খোলা জায়গায় রেখে দেন ট্রাক। তখনই ট্রাকের ইঞ্জিনে বাসা বাঁধে একটি ছোট্ট মা পাখি। সেই বাসায় ডিমও পাড়ে। তবে বাসা বাঁধা ও ডিম পাড়ার পুরো বিষয় অজানা ছিল ট্রাকচালকের। ছুটি শেষে ট্রাক নিয়ে বের হতে গিয়ে প্রথমে তিনি বিষয়টি লক্ষ্য করেন।

অতি বাস্তববাদী মানুষও মায়ার বাঁধনের সামনে তুচ্ছ। ভালবাসা ও স্নেহ মানে না কোনো যুক্তি-তর্ক। এই যেমন ইঞ্জিনে ডিমসহ পাখির বাসা দেখে আর ট্রাক চালু করতে পারেননি তুরস্কের ট্রাকচালক বাহাতিন গুরসি। ডিম ফুটে বাচ্চা উড়ে যাওয়া পর্যন্ত ট্রাক নড়বে না, এমন সিদ্ধান্ত নেন তিনি। যদিও ওই ট্রাকই তার আয়ের একমাত্র উত্স।

তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারার কাছে একটি ছোট্ট শহরে বাড়ি বাহাতিন গুরসির। বাহাতিনের সংসার চলে ট্রাক চালিয়ে। আশপাশের বড় বড় শহরে মালামাল পরিবহনের কাজ করেন তিনি। এ বছর ঈদের ছুটিতে বাড়ি ফেরেন বাহাতিন।

বাড়ির সামনে খোলা জায়গায় রেখে দেন ট্রাক। তখনই ট্রাকের ইঞ্জিনে বাসা বাঁধে একটি ছোট্ট মা পাখি। সেই বাসায় ডিমও পাড়ে। তবে বাসা বাঁধা ও ডিম পাড়ার পুরো বিষয় অজানা ছিল ট্রাকচালকের। ছুটি শেষে ট্রাক নিয়ে বের হতে গিয়ে প্রথমে তিনি বিষয়টি লক্ষ্য করেন।

ট্রাকের ইঞ্জিনে দেখেন আস্ত একটি পাখির বাসা। আর তাতে বেশ কয়েকটি ডিম। আশপাশে মা পাখিটিকেও দেখতে পাননি তিনি। ট্রাক চালু করলেই ইঞ্জিনের ঝাঁকুনিতে ভেঙে যাবে বাসা। নষ্ট হবে ডিম। তখনই মনস্থির করে ফেলেন বাহাতিন। যত দিন না ডিম ফুটে বাচ্চাগুলো বড় হয়ে উড়ে না যাবে, তিনিও ততদিন ট্রাক চালাবেন না। তার এই সিদ্ধান্তে সহমত জানায় পরিবারও।

যেমন ভাবনা, তেমন কাজ। শুরু হল অপেক্ষা। এলাকার বাচ্চারা যাতে বাসাটির কাছে না যায়, সেই দিকে ছিল তার কড়া নজর। এক সময় ডিম ফুটে বাচ্চা হয়। ৪৫ দিন পর বাচ্চাগুলো উড়তে শিখলে তাদের নিয়ে বাসা ছেড়ে উড়ে যায় মা পাখি। স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেন বাহাতিন।

এতদিন ট্রাক না চলায় আয় বন্ধ ছিল তার। ফিরিয়ে দিয়েছেন মোটা টাকার ভাড়ার বায়নাও। তাই এবার ট্রাক নিয়ে আবার বের হতে উত্সাহী তিনি। পাশাপাশি ছোট্ট পাখিগুলোকে বড় হওয়ার সুযোগ দিতে পেরে খুশি তিনি।

তুরস্কের সংবাদমাধ্যমে বাহাতিনের এই মানবিকতার কাহিনী প্রকাশ্যে আসে। তারপরই প্রশংসার জোয়ারে ভাসছেন বাহাতিন। অবশ্য এ নিয়ে মাথা ঘামাতে নারাজ তিনি। অনেকদিন পর আবার কাজে ফিরতে পেরে খুশি তিনি।

বাহাতিন বলেন, গত সোমবার বাচ্চাদের নিয়ে উড়ে গেছে পাখিটা। এবার আমি আবার আয় করতে পারব। আমি খুব খুশি। খুশি তার ছোট মেয়ে আয়সিমাও। পাখিগুলোকে ধন্যবাদ জানিয়ে সে বলল, পাখি বাসা বানাল বলেই একসঙ্গে এতদিন বাবাকে কাছে পেলাম। আমি খুব খুশি। বাবাকে আমি ভালবাসি। জিনিউজ।

হামলার পরেও মৌলিক সেবা থেকে বঞ্চিত করেছে- ভিপি নুর রাতে ঢাকায় আসছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী গুগল ম্যাপের সাহায্যে বাড়ি ফিরলো মেয়েটি নবম ওয়েজ বোর্ড নিয়ে আপিলের আদেশ মঙ্গলবার ধর্ষণের থেকে মুক্তি চাইতে গিয়ে ভাইয়ের কাছেও... রাজধানীতে ‘আল্লাহর সরকার’ ৪ জঙ্গি আটক ২০৫০-মধ্যে তলিয়ে যেতে পারে জাকার্তা মার্কিনকে চাপ অগ্রাহ্য করে জিব্রাল্টার ছাড়ল ইরানি ট্যাংকার কনস্টেবলের লক্ষ্যভ্রষ্ট গুলি এএসপির বাসায় স্বামীর লাশ দেখে মারা গেলেন স্ত্রীও পদ্মায় ফেরি-লঞ্চ সংর্ঘষ, অল্পের জন্য বেঁচে যান ৩ শতাধিক যাত্রী মেসিকে খুশি রাখতেই নেইমার ‘নাটক’ জেলা প্রশাসকের কাছে সততার পুরস্কার পেলেন অটোচালক সিরাজগঞ্জে কাপড় ব্যবসায়ীর স্ত্রী-কন্যা নিখোঁজ পেয়ারা পাড়তে গিয়ে স্কুলছাত্রীর করুণ মৃত্যু খুলনার সঙ্গে রেল যোগাযোগ বন্ধ ভারত পরমাণু যুদ্ধ বাধাতে পারে: ইমরান খান রাঙামাটিতে সন্ত্রাসীদের গুলিতে সেনা সদস্য নিহত এক মাসেই তিনবার বাড়লো সোনার দাম ছাত্রদলের নেতেৃত্বে আসতে মনোনয়নপত্র কিনলেন ১০৮ জন ‘অদৃশ্য খুঁটির’ জোরে ৪ লাখ টাকার গাছ ৮০ হাজার টাকায় বিক্রি সিপিডির ভবনে এডিস মশার লার্ভা, ২০ হাজার টাকা জরিমানা শোক দিবসের আলোচনা সভা করবেন ড. কামাল চামড়া শিল্পে আপাতত সমস্যা নেই: শিল্পমন্ত্রী শোক দিবসের অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগের রক্তদান সোমবার রাতে ঢাকায় আসছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অতিরিক্ত ডিআইজি হলেন পুলিশের ২০ কর্মকর্তা এএসপির মেয়ের টেবিলের ওপর আঘাত হানলো কনস্টেবলের গুলি চামড়া বিক্রি বন্ধের সিদ্ধান্তে নেই আড়তদাররা দেশে এলো কলকাতায় নিহত ২ বাংলাদেশির মরদেহ