artk
বুধবার, সেপ্টেম্বার ১৮, ২০১৯ ৪:০২   |  ৩,আশ্বিন ১৪২৬

স্টাফ রিপোর্টার

শনিবার, জুন ১৫, ২০১৯ ৫:৪৭

ঘাটতি মেটাতে ব্যাংক ঋণের সাহায্য নিলে সমস্যা ঘনীভূত হবে: জাপা

media

জিএম কাদের বলেন, বর্তমানে দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে তারল্য সংকট চলছে। কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, সরকারের অধিক হারে ঋণ গ্রহণ। ফলে বেসরকারি খাতে নতুন উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীরা প্রয়োজনমত যথেষ্ট ঋণ পাচ্ছেন না।

নতুন বাজেটের ঘাটতি মেটাতে সরকার ব্যাংক ঋণের সাহায্য নিলে বিরাজমান সমস্যা আরও ঘনীভূত হবে বলে মনে করেন জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের এমপি।

শনিবার জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় রজনীগন্ধায় ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর দলের পক্ষ থেকে প্রতিক্রিয়ায় তিনি এ কথা বলেন।

জিএম কাদের বলেন, বর্তমানে দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে তারল্য সংকট চলছে। কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, সরকারের অধিক হারে ঋণ গ্রহণ। ফলে বেসরকারি খাতে নতুন উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীরা প্রয়োজনমত যথেষ্ট ঋণ পাচ্ছেন না।

‘এ কারণে বিনিয়োগ ও ব্যবসা বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সমস্যা হচ্ছে। এ অবস্থায় ঘাটতি মেটাতে সরকার যখন আবার ব্যাংক ঋণের সাহায্য নেবে, তা বিরাজমান সংকটকে আরও ঘনীভূত করতে পারে।’

তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি বিশ্বাস করে গণমানুষের জন্যই বাজেট প্রণয়ন করা হয়। প্রস্তাবিত ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বাজেট এ যাবৎকালের সর্ববৃহৎ বাজেট। আকৃতি বেশ বড়। বড় অংকের অর্থ রাজস্ব খাতে আয় করতে হবে।

‘আবার নির্ধারিত খাতে বড় ধরনের ব্যয়ও করতে হবে। দুটিই বড় চ্যালেঞ্জ সরকারের জন্য। আয়ের প্রশ্নে আমাদের চাওয়া, যাতে অপেক্ষাকৃত অবস্থাপন্নদের কাছ থেকে বেশি হারে রাজস্ব আদায়ের ব্যবস্থা থাকে ও স্বল্প আয়ের মানুষের ঘাড়ে কম দায় চাপানো হয়।’

‘অর্থাৎ প্রত্যক্ষ কর যেমন আয়কর থেকে যতদূর সম্ভব রাজস্ব আদায় করা হয় ও পরোক্ষ কর (যেমন আমদানি শুল্ক ইত্যাদি) থেকে কম অংশ আয়ের ব্যবস্থা করা হয়,’ জানালেন জিএম কাদের।

তিনি বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে আয়-ব্যয়ের মধ্যে একটি বিশাল ফারাক আছে, যাকে বলা হয় বাজেট ঘাটতি ও যার আকার অঙ্কে ১ লাখ ৪৫ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা।

‘এ ঘাটতি মেটানোর জন্য প্রস্তাব করা হয়েছে ব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণ (৪৭ হাজার ৩৬৪ কোটি) + বিদেশী ঋণ ও সাহায্য (৬৩ হাজার ৮৪৮ কোটি) + ব্যাংকের বাইরে (সঞ্চয়পত্র ইত্যাদি) থেকে নেয়া ঋণ (৩০ হাজার কোটি) টাকা।’

তিনি বলেন, এ ধরনের ঋণের খরচ অধিক ও প্রভাব সুদূরপ্রসারী। এ ধরনের ঋণ গ্রহণের আগে বিষয়টি ভালোমতো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা বাঞ্ছনীয়। তাছাড়া মোট ঘাটতি আরও অধিক হওয়ার আশঙ্কা আছে।

ঢাবিতে আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা (ভিডিও) শাহজালালে কোটি টাকার সোনা জব্দ ছাত্রদলের কাউন্সিলরদের বিকেলের মধ্যে নয়াপল্টনে থাকার নির্দেশ পটুয়াখালীতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই আরোহী নিহত বিএসএফের গুলিতে নিহত বাংলাদেশির মরদেহ ফেরত জাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মোবাইল সেবা বন্ধ রাঙামাটিতে ২ জেএসএস কর্মীকে গুলি করে হত্যা গাজীপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত জাকির নায়েককে কেউ নিতে চায় না: মাহাথির সকালের নাস্তায় ভুল খাবার নয়, রাখুন এসব যে গ্রামের সব মানুষ দৃষ্টিহীন গণধর্ষণ মামলার বাদীর দুই পা গুড়িয়ে দিয়েছে আসামিরা নারায়ণগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শীর্ষ সন্ত্রাসী নিহত বিপদসীমার ২১ সেন্টিমিটার ওপরে তিস্তার পানি, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত সাইবার ক্রাইম বিভাগে দ্বারস্থ মেহজাবিন নকল বিদেশি ওষুধ বিক্রি করায় ২ প্রতিষ্ঠানকে ৪০ লাখ টাকা জরিমানা গণহত্যার ঝুঁকিতে এখনো ৬ লাখ রোহিঙ্গা: জাতিসংঘ গাজীপুরে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে অবৈধ গ্যাস লাইনে অগ্নিকাণ্ড ফেসবুক স্ট্যাটাস দেখেই শিক্ষার্থীদের বহিষ্কার করেন উপাচার্য পাবনায় ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে ট্রেন চালকের আত্মহত্যা সৌদি আরবে ফের হামলা চালিয়েছে ইয়েমেন ঢাকার শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মী জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়েছে চাঁদাবাজির অভিযোগে ঢাকা উত্তর ছাত্রলীগ নেতা বহিস্কার ‘ডাক্তার বলার আগেই আয়া রোগীর পোশাক খুলে নেয়’ দুর্নীতি নির্মূলে টাস্কফোর্স গঠনের দাবি সম্পাদক পদে প্রার্থী হবেন না ওবায়দুল কাদের রিজার্ভ চুরির ব্যাপারে কিছুই বলা যাবে না: অর্থমন্ত্রী আলিয়ার সঙ্গে চুমুর দৃশ্যে আপত্তি সালমান খানের? মামলাকে কর ফাঁকির হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে মেঘনা গ্রুপ! খালেদা জিয়া আলেমদের কিছু দেন নাই: আল্লামা শফী