artk
বুধবার, সেপ্টেম্বার ১৮, ২০১৯ ৪:০৪   |  ৩,আশ্বিন ১৪২৬

জেলা সংবাদদাতা

মঙ্গলবার, জুন ১১, ২০১৯ ৭:৩৭

আসামি বড় ভাই, জেল খাটছেন ছোট ভাই!

media

জেল খাটছেন সজল

‘বড় ভাইয়ের বদলে’ রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী সজল মিয়া (৩৪) কাঠমিস্ত্রির কাজ করেন। গত ৩০ এপ্রিল গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে যাওয়ার পর থেকেই তাকে এ কাজ করতে হয়। মঙ্গলবার সজল এ কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘কোনো দোষ করিনি। আমি আসামি না। তারপরেও আমি কয়েদি!’

সজলের এ দাবি ঠিক কি না তার শুনানির জন্য মঙ্গলবার সকালে তাকে রাজশাহীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে (প্রথম) হাজির করা হয়। কিন্তু এ দিন আদালত বসেনি। আদালতের কাঠগড়া থেকে হাজতে নিয়ে যাওয়ার পথে আসামি নিজেকে ‘সজল’ দাবি করেই এ প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলেন। তার বক্তব্য, বাদীপক্ষের প্ররোচনায় পুলিশ বড় ভাইয়ের বদলে তাকে ধরেছে।

ভুক্তভোগী সজল মিয়ার বাড়ি রাজশাহী মহানগরীর ছোটবনগ্রাম পশ্চিমপাড়া মহল্লায়। তার বাবার নাম তোফাজ উদ্দিন। সজলের বড় ভাইয়ের নাম সেলিম ওরফে ফজল। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের একটি মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ফজল দীর্ঘদিন ধরেই পলাতক। তার অনুপস্থিতিতেই ২০০৯ সালের ২৮ আগস্ট মামলার রায় হয়। সেদিন খালাস পান অন্য চার আসামি।

দীর্ঘ ১০ বছর পর গত ৩০ এপ্রিল সজলকে গ্রেফতার করে নগরীর শাহ মখদুম থানা পুলিশ। সেদিন তাকে ফজল হিসেবেই আদালতে উপস্থাপন করা হয়। এরপর কারাগারে পাঠানো হয়। পরে গত ২৬ মে সজল তার আইনজীবীর মাধ্যমে নিজের মুক্তি চেয়ে আদালতে আবেদন করেন। আবেদনে বলা হয়, আসামি বড় ভাইয়ের পরিবর্তে তিনি জেল খাটছেন। এ আবেদনের শুনানির দিন ধার্য ছিল মঙ্গলবার।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, বিচারক মো. মনসুর আলীর একজন নিকাটাত্মীয় মারা গেছেন। তাই মঙ্গলবার আদালত বসেনি। তবে সজলের বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় বিচারক বুধবারই শুনানির জন্য দিন ধার্য করে দিতে বলেছেন আদালতের পেসকারকে। সে অনুযায়ী, বুধবার সজলকে আবার কারাগার থেকে আদালতে আনা হবে। তবে আদালতের পক্ষ থেকে শুনানির দিনে পুলিশকে তলব করা হয়নি।

সূত্র আরও জানায়, রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ ট্রাইব্যুনালে কিছু কাগজপত্র পাঠিয়েছে। এতে দেখা যাচ্ছে, মামলার রায় ঘোষণার আগে ফজল গ্রেফতার হয়ে হাজতি হিসেবে কারাগারে ছিলেন। তবে একই মামলায় এখন বন্দী কয়েদির সঙ্গে তার অনেক অমিল রয়েছে। মিলছে না উচ্চতাও।

সজল মিয়া বলেন, ‘আমি শুধু জানি বড় ভাইয়ের মামলাটা ছিল নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের। কিন্তু কেন মামলাটা হয়েছিল সেটাও জানি না। আমি ডাব বিক্রি করতাম। পুলিশ আমাকে বিনা দোষে জেলে পাঠিয়েছে। জেলে কাঠমিস্ত্রি হিসেবে কাজ করতে হয়। ‘এমবি-৪’ নম্বর ওয়ার্ডে থাকি। জেলে পুরনো কয়েদিদের বড় যন্ত্রণা। তারা খুব খারাপ আচরণ করে। বিনা দোষে এসব সহ্য করতে হচ্ছে।’

এদিন সজলের ভাই মো. বাবু, ভাবি আফরোজা বেগম, বোন পিয়ারি বেগম, উমে খাতুন, এবং দুলাভাই মো. কালুও আদালতে এসেছিলেন। তারা দাবি করেন, কারাবন্দী সজল মামলার আসামি না। আর আসামি ফজলের কোনো খোঁজ নেই। তিনি বেঁচে আছেন কি না তাও তারা জানেন না।

সজলের আইনজীবী মোহন কুমার সাহা বলেন, অপরাধী না হয়েও সজল সাজা ভোগ করছেন। পুুলিশ ভুল করে অথবা বাদীপক্ষের কাছে প্রভাবিত হয়ে তাকে কারাগারে পাঠিয়েছে। কিন্তু গ্রেফতার সজল যে আসামি নন তার সমস্ত প্রমাণ তাদের কাছে আছে। তিনি আশা করছেন, শুনানিতে বুধবারই মুক্তি পাবেন সজল। আর আদালতে তিনি নির্দোষ প্রমাণ হলে ক্ষতিপূরণ দাবি করা হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নগরীর শাহ মখদুম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম মাসুদ পারভেজ বলেন, তারাও চান না যে কোনো নির্দোষ ব্যক্তি সাজা খাটুক। কিন্তু গ্রেফতার আসামি যে ফজল সে ব্যাপারে মামলার সাক্ষীরা এফিডেফিট করে দিয়েছেন। সেটি আদালতে দাখিল করা হয়েছে। তবে আদালতের শুনানিতেই বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে যাবে যে আসল আসামি কে।

ঢাবিতে আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা (ভিডিও) শাহজালালে কোটি টাকার সোনা জব্দ ছাত্রদলের কাউন্সিলরদের বিকেলের মধ্যে নয়াপল্টনে থাকার নির্দেশ পটুয়াখালীতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই আরোহী নিহত বিএসএফের গুলিতে নিহত বাংলাদেশির মরদেহ ফেরত জাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মোবাইল সেবা বন্ধ রাঙামাটিতে ২ জেএসএস কর্মীকে গুলি করে হত্যা গাজীপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত জাকির নায়েককে কেউ নিতে চায় না: মাহাথির সকালের নাস্তায় ভুল খাবার নয়, রাখুন এসব যে গ্রামের সব মানুষ দৃষ্টিহীন গণধর্ষণ মামলার বাদীর দুই পা গুড়িয়ে দিয়েছে আসামিরা নারায়ণগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শীর্ষ সন্ত্রাসী নিহত বিপদসীমার ২১ সেন্টিমিটার ওপরে তিস্তার পানি, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত সাইবার ক্রাইম বিভাগে দ্বারস্থ মেহজাবিন নকল বিদেশি ওষুধ বিক্রি করায় ২ প্রতিষ্ঠানকে ৪০ লাখ টাকা জরিমানা গণহত্যার ঝুঁকিতে এখনো ৬ লাখ রোহিঙ্গা: জাতিসংঘ গাজীপুরে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে অবৈধ গ্যাস লাইনে অগ্নিকাণ্ড ফেসবুক স্ট্যাটাস দেখেই শিক্ষার্থীদের বহিষ্কার করেন উপাচার্য পাবনায় ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে ট্রেন চালকের আত্মহত্যা সৌদি আরবে ফের হামলা চালিয়েছে ইয়েমেন ঢাকার শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মী জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়েছে চাঁদাবাজির অভিযোগে ঢাকা উত্তর ছাত্রলীগ নেতা বহিস্কার ‘ডাক্তার বলার আগেই আয়া রোগীর পোশাক খুলে নেয়’ দুর্নীতি নির্মূলে টাস্কফোর্স গঠনের দাবি সম্পাদক পদে প্রার্থী হবেন না ওবায়দুল কাদের রিজার্ভ চুরির ব্যাপারে কিছুই বলা যাবে না: অর্থমন্ত্রী আলিয়ার সঙ্গে চুমুর দৃশ্যে আপত্তি সালমান খানের? মামলাকে কর ফাঁকির হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে মেঘনা গ্রুপ! খালেদা জিয়া আলেমদের কিছু দেন নাই: আল্লামা শফী