artk
বুধবার, সেপ্টেম্বার ১৮, ২০১৯ ৪:০৯   |  ৩,আশ্বিন ১৪২৬
রোববার, জুন ২, ২০১৯ ১০:২১

এসিডিটির আদ্যোপান্ত

স্বাস্থ্য ও পুষ্টি ডেস্ক
media
খালিপেট পেপের তরকারি দিয়ে খাওয়া শুরু করুন। পসিবল হলে চিড়া ভেজানো অথবা পান্তা ভাত ও খালি পেটে খেয়ে দেখতে পারেন।

এসিডিটি, লোকাল বংলায় যাকে বলা হয় গ্যাস্ট্রিক। আপনারা কি জানেন ইদানিংকালে আমাদের বাঙালিদের সবচেয়ে বড় স্বাস্থ্যগত সমস্যা কি? সোজা উত্তর এসিডিটি। ভোজন রসিক বাঙালিদের রসনাবিলাস স্বভাবের জন্যই হোক আর স্বাস্থ্যের প্রতি সচেতনতার অভাবই হোক নিত্যনতুন এসিডিটির সমস্যা হু হু করে বেড়েই চলেছে যেন।

এসিডিটি কি?

আমাদের শরীরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হলো পাকস্থলি। এই পাকস্থলির বেশ কয়েকটি লেয়ার রয়েছে। এইসব লেয়ারের একটি থেকে সবসময় হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড সিক্রেশন হয়। এই সিক্রেশন কিন্তু সবসময় একই থাকে না।কখনো বেশি কখনো বা কম হয়। সাধারণত কিছু কিছু আনওয়ান্টেড সিচুয়েশনে এই হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড সিক্রেশন স্বাভাবিকের চাইতে অনেক বেড়ে যায়, তখনি পাকস্থলির যে এবনরমালিটি সৃষ্টি হয় তাকেই এসিডিটি বলে।

এসিডিটির সাইন অ্যান্ড সিম্পটমস:

প্রাথমিক অবস্থায় :

- পেটে হালকা ব্যথা

- বমি বমি ভাব

- বুকে জ্বালাপোড়া  এবং

- পেট ভার ইত্যাদি হতে পারে।

কিন্তু ক্রনিক অবস্থায় পেটে প্রচণ্ডরকম ব্যথা, বুক অসহ্য রকমের জ্বালাপোড়া, বেশ কয়েকবার বমি, হার্ট বার্ন এমনকি শ্বাসকষ্ট ও হতে পারে।

এসিডিটির কারণ:

১. এসিডিটির প্রথম এবং প্রধান কারণ হলো আমাদের খাদ্যাভ্যাস। অনিয়মিত এবং অসময়ে খাবারের নিয়মিত চর্চাতে এই এসিডিটির সৃষ্টি হয়।

২. ভাজাপোড়া এবং অতিরিক্ত মসলাযুক্ত খাবারের জন্য ও এসিডিটির সৃষ্টি হয়।

৩. অতিরিক্ত জাঙ্কফুড বা ফাস্ট ফুড গ্রহণের অভ্যাস থাকলেও এসিডিটির সৃষ্টি হয়।

৪. অতিরিক্ত চিন্তা, রাতে ঘুম না আসা, ধুমপানের অভ্যাস ইত্যাদি কারণেও এসিডিটির তৈরি হয়।

৫. অতিরিক্ত ব্যথার ওষুধ সেবন। বিশেষ করে নন স্টেরোয়ডাল এন্টি ইনফ্ল্যামেটরি এজেন্ট সমুহের অতিরিক্ত সেবনে এসিডিটির সমস্যা অনেক বেড়ে যায়।

৬. ফাইনালি যদি কোন কারণে পাকস্থলিতে কোন ধরনের ইনফেকশন বা এবনরমালিটির সৃষ্টি হয়, তখনো অ্যাসিড সিক্রেশন বেড়ে গিয়ে এসিডিটির কারণ হতে পারে।

চিকিৎসা:

সাধারণত এসিডিটি কনট্রোলের জন্য এইচ টু ব্লকার যেমন-রেনিটিডিন, সিমিটিডিন অথবা পি পি আই ইনহিবিটর যেমন-ওমিওপ্রাজোল, এস ওমিওপ্রাজোল, রুবিপ্রাজোল, প্যান্ট্রোপ্রাজোল ইত্যাদি ডাক্তার রা প্রেসক্রাইব করে থাকেন।
তবে একবার অতিরিক্ত অ্যাসিড সিক্রেশনের জন্য ব্যথা আরম্ভ হয়ে গেলে অবশ্যই অ্যান্টাসিড প্রিপারেশন সাথে দিতে হবে।

প্রতিরোধ:

আপনারা হয়তো জানেন পৃথিবীর প্রায় এক চতুর্থাংশ লোক এখন এই এসিডিটির সমস্যায় ভোগে। আর আমাদের এশিয়া মহাদেশে মূলত দক্ষিণ এশিয়াতে এর ভুক্তভোগীর সংখ্যা তুলনামূলক অনেক বেশি। তাই অতিরিক্ত অ্যাসিড সিক্রেশন বন্ধ করতে আমরা যা করতে পারি-

১. নিয়মিত খাদ্যভ্যাস গড়ে তুলুন। প্রতিদিন সঠিক সময়ে খাবার গ্রহণ করতে হবে।

২. পরিমিত খাবার খান, অতিরিক্ত খাবার গ্রহণ এড়িয়ে চলুন। একটু পরে পরে পরিমিত খাবার খাওয়ার অভ্যাস করুন।

৩. ভাজাপোড়া আর অতিরিক্ত মসলাযুক্ত খাবারকে বাই বাই বলুন। তেলে ভাজা খাবার আর শুকনো মরিচ এসিডিটির অন্যতম কারণ এটা মনে রাখবেন।

৪. খালিপেট পেপের তরকারি দিয়ে খাওয়া শুরু করুন। পসিবল হলে চিড়া ভেজানো অথবা পান্তা ভাত ও খালি পেটে খেয়ে দেখতে পারেন।

৫. প্রচুর বিশুদ্ধ পানি পান করুন।

৬. ধূমপান, অ্যালকোহল ইত্যাদি ত্যাগ করুন।

৭. পর্যাপ্ত পরিমানে ঘুম আসুন, চিন্তা মানসিক অবসাদ ইত্যাদিকে বিদায় করুন।

৮. মনে রাখবেন খাবারের স্বাদ পাওয়া মাত্রই আমাদের পাকস্থলির অ্যাসিড সিক্রেশন শুরু হয়ে যায় তাই যত্রতত্র একটু আধটু হুটহাট খাবার খাওয়া বন্ধ করুন।

৯. খাবারের মাঝে ও পরে ইচ্ছামত পানি পান করা বন্ধ করুন। খাবার গ্রহণের আধাঘণ্টা আগে এবং পরে এক গ্লাস করে পানি পান করার অভ্যাস করুন।

১০. নিজে নিজে যেকোন ধরনের অতিরিক্ত ওষুধ খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। প্রয়োজনে ফিজিশিয়ান এর প্রেসক্রিপশন  অনুযায়ী ওষুধ খাবেন।

পরিশেষে আমাদের আমজনতার কাছে এসিডিটি এক নিত্যনৈমিত্তিক সাধারণ ব্যাপার। সাধারনত এই এসিডিটিকে আমরা আমলেই নিতে চাই না। কিন্তু এই সাধারণ ব্যাপারখানা ও যে কতটা মারাত্মক আর কতটা যন্ত্রণার হতে পারে, কেবল ভুক্তভোগীরাই ভালো জানেন। তাই এখন থেকেই শুরু করি আমাদের পাকস্থলীর যত্ন নেয়া, নিজেদের খাদ্যভ্যাস চেঞ্জ করা।

অতিরিক্ত অ্যাসিড সিক্রেশনের কারণেই এক সময় পেপটিক আলসার থেকে শুরু করে পাকস্থলির ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে। আর ক্যান্সার কতটা মারাত্নক ব্যাধি বোধ করি আপনাদের তা আর নতুন করে জানানোর প্রয়োজন পরবে না। তাই পাঠক এসিডিটির প্রকোপ থেকে বাঁচার জন্য আজকে থেকেই নিজের যত্ন নিন।

ঢাবিতে আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা (ভিডিও) শাহজালালে কোটি টাকার সোনা জব্দ ছাত্রদলের কাউন্সিলরদের বিকেলের মধ্যে নয়াপল্টনে থাকার নির্দেশ পটুয়াখালীতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই আরোহী নিহত বিএসএফের গুলিতে নিহত বাংলাদেশির মরদেহ ফেরত জাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মোবাইল সেবা বন্ধ রাঙামাটিতে ২ জেএসএস কর্মীকে গুলি করে হত্যা গাজীপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত জাকির নায়েককে কেউ নিতে চায় না: মাহাথির সকালের নাস্তায় ভুল খাবার নয়, রাখুন এসব যে গ্রামের সব মানুষ দৃষ্টিহীন গণধর্ষণ মামলার বাদীর দুই পা গুড়িয়ে দিয়েছে আসামিরা নারায়ণগঞ্জে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শীর্ষ সন্ত্রাসী নিহত বিপদসীমার ২১ সেন্টিমিটার ওপরে তিস্তার পানি, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত সাইবার ক্রাইম বিভাগে দ্বারস্থ মেহজাবিন নকল বিদেশি ওষুধ বিক্রি করায় ২ প্রতিষ্ঠানকে ৪০ লাখ টাকা জরিমানা গণহত্যার ঝুঁকিতে এখনো ৬ লাখ রোহিঙ্গা: জাতিসংঘ গাজীপুরে বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে অবৈধ গ্যাস লাইনে অগ্নিকাণ্ড ফেসবুক স্ট্যাটাস দেখেই শিক্ষার্থীদের বহিষ্কার করেন উপাচার্য পাবনায় ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে ট্রেন চালকের আত্মহত্যা সৌদি আরবে ফের হামলা চালিয়েছে ইয়েমেন ঢাকার শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মী জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়েছে চাঁদাবাজির অভিযোগে ঢাকা উত্তর ছাত্রলীগ নেতা বহিস্কার ‘ডাক্তার বলার আগেই আয়া রোগীর পোশাক খুলে নেয়’ দুর্নীতি নির্মূলে টাস্কফোর্স গঠনের দাবি সম্পাদক পদে প্রার্থী হবেন না ওবায়দুল কাদের রিজার্ভ চুরির ব্যাপারে কিছুই বলা যাবে না: অর্থমন্ত্রী আলিয়ার সঙ্গে চুমুর দৃশ্যে আপত্তি সালমান খানের? মামলাকে কর ফাঁকির হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে মেঘনা গ্রুপ! খালেদা জিয়া আলেমদের কিছু দেন নাই: আল্লামা শফী