artk
বুধবার, এপ্রিল ২৪, ২০১৯ ১০:৪৮   |  ১১,বৈশাখ ১৪২৬
সোমবার, এপ্রিল ৮, ২০১৯ ১:০৯

বৈশাখী মেলার জন্য হাতি-ঘোড়া বানা‌তে ব্যস্ত মা‌নিকগ‌ঞ্জে বণিকরা

মো. সো‌হেল রানা খান, মা‌নিকগঞ্জ সংবাদদাতা
media
সাটুরিয়ার বণিক পরিবারের দাবি, তাদের যদি গ্যাস সরবারহ ও সুদমুক্ত ঋণ দেওয়া হতো, তাহলে তাদের জীবনের মান উন্নয়নে আরও সুবিধা হতো।

আর কয়েকদিন পরেই পহেলা বৈশাখ। বাংলা বছরের প্রথম মাসের প্রথম দিন। বাঙা‌লির প্রা‌ণের উৎসব পহেলা বৈশাখ মা‌নেই গ্রা‌মে গ্রা‌মে মেলা। পহেলা বৈশাখের মেলায় বিক্রির জন্য হাতি, ঘোড়া, মুকুট, নৌকা, পাখির সাজ তৈরি‌তে মা‌নিকগ‌ঞ্জের সাটু‌রিয়ার বণিক পরিবারের সদস্যরা এখন অনেক ব্যস্ত। তাদের তৈরি সাজ (খাবার) আসছে পহেলা বৈশাখের মেলায় বিক্রি হবে।

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ার উপজেলার বালিয়াটি ইউনিয়নের ভাটারা গ্রামের কয়েকটি পরিবার সাজ তৈরি করে জীবিকা নির্বাহ করে। পরিবারগুলো বাপ-দাদার পেশা হিসেবে এ পেশাকে আঁকড়ে ধরে আছে। প্রায় দেড়শ বছরের পুরনো ঐতিহ্য ধরে রেখেছে তারা। বিশেষ করে বৈশাখী মেলায় তাদের কদর বেশি হয়। বৈশাখী মেলায় বিক্রির জন্য রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকাররা এসে ফরমায়েশ (অগ্রিম অর্ডার) দেন হাতি, ঘোড়া, মুকুট, নৌকা, পাখিসহ বাহারি রঙের সাজের। ব‌নিক প‌রিবা‌রের ব্যস্ত সময় পার করছে সাঁজ শিল্পীরা।

সরেজমিন ‌গি‌য়ে দেখা যায়, উপ‌জেলার ভাটারা গ্রামের যে কয়টি বণিক পরিবার রয়েছে তারা সবাই ব্যস্ত সাজ তৈরি করতে। পহেলা বৈশাখের কাজ নিয়ে দিনরাত ব্যস্ত সময় পার করছে বনিক পরিবারগুলোর ছোট বড় সবাই। সকালের সূর্যোদয়ের সঙ্গে শুরু হয় বিভিন্ন ধরনের সাজ তৈরি এবং তা প্রক্রিয়া করার কাজ। গুড় ও চিনি পানিতে মিশিয়ে জাল করে রস বানিয়ে তৈরি করা হয় সুস্বাধু নানা রকমের সাজ। কেউ তৈরি করছে গুড়ের তৈরি বাতাসা আবার কেউ তৈরি করছে চিনির সাদা হাতি, ঘোড়া, মুকুট, নৌকা, পাখি, কদমা, মাছসহ নানা ধরনের সাজ।



কে কার থেকে বেশি সাজ তৈরি করতে পারে এ নিয়ে চলে তাদের মধ্যে প্রতিযোগিতা। এ সাজ তৈ‌রির খেলা চলে মধ্যরাত পযর্ন্ত। বাবা মাকে সাহায্য করতে ঘরের শিশুরাও পিছিয়ে নেই। মা বাবার কাজ দেখে শিখেছে কিভাবে সাজ তৈরি করতে হয়। কিন্তু বাবা মা চান না ছেলে মেয়েরা এ পেশায় আসুক। তাদের চাওয়া সন্তানরা লেখাপড়া করুক। গুড় দিয়ে তৈরি করছে লাল রঙের বড় বাতাসা ও চিনি দিয়ে তৈরি করছে সাদা বাতাসা।

এ ছাড়া কাঠের ফর্মার চিনির রস তৈর করে তা দিয়ে তৈরি করছেন হাতি, ঘোড়া, মুকুট, নৌকা, পাখি, কদমা, মাছসহ নানা ধরনের সাজ। এসব সাজ তৈরি হয় গুড় ও চিনি দিয়ে। বৈশাখে এলাকার বিভিন্ন মেলায় যা বিক্রি হবে। এ সব সাজ বিন্নির সঙ্গে বিক্রি করা হয়। মেলায় শুধু শিশুদের নয় বড়দের ও মন আকৃষ্ট করে ভাটারার বনিকদের তৈরি করা এসব সাজ। আর বৈশাখী মেলায় গিয়ে বিন্নির সঙ্গে সাজ না কিনলে মেলাই করা হয় না গ্রামের মানুষের।

ভাটারা গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, ননী গোপাল বনিক গুড়ের বাতাসা তৈরি করছেন। সঙ্গে যোগান দিয়ে‌ছে স্ত্রী আলো রাণী বনিক। চুলার মধ্যে আখের গুড় জাল করে একটি ছিদ্র পাত্র দিয়ে ঢেলে বড় বড় বাতাসা সাজ তৈরি করছে। এ বাতাসা বিন্নি দিয়ে খেতে খুবই মজার। প্রায় ৭০ বছর ধরে এ পেশায় জড়িত সে। ননী বনিক আরও জানায়, খাটি আখের গুড় ছাড়া এ সাঁজ বানানো যায় না। রাজশাহী থেকে ১ মণ খাটি গুড় কিনতে ২ হাজার ৭শ টাকা লাগে। আর একমণ গুড় দিয়ে ৩৫ থেকে ৩৬ কেজি বাতাসা তৈরি হয়। তবে এলাকার হাট বাজারে ‌বি‌ক্রি হওয়া আখের গুড়ে চিনি মেশানো থাকায় এ গুড় দিয়ে সাঁজ তৈরি করা যায় না।

ভাটারার বাসুদেব বনিক সে চিনি দিয়ে তৈরি করে মুকুট, হাতি, ঘোড়া, মাছ, নৌকা, পাখি ও লিচুসহ বিভিন্ন সাজ। কাঠের ফ্রে‌মে চিনি জাল করে ঢেলে দিয়ে ৫ মিনিট পর তৈরি হচ্ছে এসব সাজ। বাপ দাদার পূর্বের কাজ এখনও ধরে রেখেছে সে। এ পেশা ছাড়া অন্য কোন পেশা নেই তার। পরিবারের ৭ সদস্য নিয়ে এ

সাজের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে সে।
ভাটারার শ্যামল বণিক জানায়, স্বাধীনতার আগে ও পরে এই ভাটারা গ্রামে প্রায় ৮০০ বনিক পরিবার ছিল। বেশির ভাগ বনিক ভারতে চলে যাওয়ায় এখন মাত্র ১০ ব‌নিক পরিবার সাজের পেশা ধরে রেখেছে। বৈশাখ আর শীতের সময় বেশি চাহিদা থাকে সাজের। কারণ ওই সময় মেলা ও ওরস বেশি থাকে। প্রতিদিন সব মিলিয়ে ৪ থেকে ৫ মণ সাজ তৈরি করা যায়।

মানিকগঞ্জ ছাড়াও এ সাজ টাঙ্গাইল, নারায়ণগঞ্জ, মির্জাপুর, নাগরপুর ও উত্তরাঞ্চলে পাইকারি বিক্রি করা হয়। এক মণ (৪০ কেজি) এই সাজ তৈরি করতে খরচ হয় দুই হাজার ৮০০ টাকা। বিক্রি করা হয় তিন হাজার ২০০ টাকা।

ভাটারা গ্রা‌মের তপন বনিক, দেবেশ বনিক, নীলকান্তি বনিক, গোবিন্দ বনিক ও কমল বনিক জানায়, সরকারি পৃষ্টপোষকতা পেলে তাদের এ সাজ দেশের বাইরে রপ্তানি করা যেতে পারে। গ্যাসের ব্যবস্থা থাকলে এ সাজ তৈরি করতে খরচ কম হতো। তারা বিভিন্ন এনজিও থেকে টাকা নিয়ে এ সাজে তৈ‌রির ব্যবসা করে থাকে।

এ ছাড়া সরকারি কোন পৃষ্ঠপোষকতা বা ব্যাংক থেকে সুদ মুক্ত ঋণ পেলে এ পেশাকে ধরে রাখা সম্ভব হতো তা‌দের জন্য। তাদের অতি কষ্টে জীবন যাপন করতে হয়।

সাটুরিয়ার বণিক পরিবারের দাবি, তাদের যদি গ্যাস সরবারহ ও সুদমুক্ত ঋণ দেওয়া হতো, তাহলে তাদের জীবনের মান উন্নয়নে আরও সুবিধা হতো।

মোবাইল চুরি: সাংবাদিকদের আটকে রাখলেন শমী কায়সার অস্বাভাবিক কিছু দেখলেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জানাবেন: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর ফুফু হামিদা খানমের ইন্তেকাল বাসা-বাড়িতে নতুন গ্যাস সংযোগ আর নয়: প্রতিমন্ত্রী ১০ জন নারীর মধ্যে সাতজনই পরকীয়ায় লিপ্ত শরবত খাওয়াতে আসা মিজানুরের ‘মানসিক সমস্যা’: ওয়াসার এমডি ডায়াবেটিস নিরাময় করতে জার্মানিতে অভিনব উদ্যোগ গেম অফ থ্রোনসের শুটিং হলো যে জাদুময় জায়গায় চাপমুক্ত থাকবে ইউনাইটেড ফাইন্যান্সের শেয়ার হোল্ডাররা শ্রীলঙ্কার পুলিশ প্রধান ও স্বরাষ্ট্র সচিবকে পদত্যাগের নির্দেশ ‘ধর্ষণ মহামারি আকার ধারণ করেছে, আইন শৃঙ্খলার অবনতি হয়েছে’ মানুষের দাড়ি কি কুকুরের পশমের চেয়েও বিপজ্জনক? ৩০ এপ্রিল শাহাবাগে ঐক্যফ্রন্টের গণজমায়েত ভোটের মেশিন থেকে বের হলো সাপ শেখ হাসিনা আমাকে প্রতিবছর মিষ্টি পাঠান: মোদি বন্ড পণ্য অবৈধভাবে বিক্রি করছে অলিম্পিক এক্সেসরিজ সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে ইভিএম ব্যবহারের বিকল্প নেই: সিইসি শেষবার জায়ানকে দেখতে শেখ সেলিমের বাসায় প্রধানমন্ত্রী সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের কেডস ও কিপিং গ্লাভস দিলেন তামিম প্রক্টরের আশ্বাসে নীলক্ষেত ছাড়লেন সরকারি সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা দ্বৈত কর পরিহার চুক্তিতে সম্মত বাংলাদেশ-মালদ্বীপ রণদা প্রসাদ হত্যায় অভিযুক্ত টাঙ্গাইলের মাহবুবুরের রায় যে কোনো দিন ব্যবস্থাপত্র ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বন্ধে নির্দেশনা চেয়ে রিট হাতিকে চাঁদা না দেয়ায় শূন্যে তুলে আছাড়, ইজিবাইকচালক মরণাপন্ন! পাবনায় তিন পুলিশ হত্যার দায়ে ৮ চরমপন্থীর যাবজ্জীবন অভিনেতা সালেহ আহমেদ আর নেই বিশ্বকাপ দল নিয়ে সমালোচনা বন্ধের আহ্বান তামিমের ৩শ রান চেজ করে জেতার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে: তামিম ঢাকায় এলো জায়ানের লাশ উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন