artk
মঙ্গলবার, নভেম্বার ১৯, ২০১৯ ৮:১৩   |  ৫,অগ্রহায়ণ ১৪২৬

সঞ্জয় দে রিপন

বুধবার, এপ্রিল ৩, ২০১৯ ৯:০৭

ট্রাজিক ফর্ম এবং রাজনীতি

media

মরমীয়া কল্পনা প্রবণতা নন্দনতত্ত্বের বা সৌন্দর্য চর্চার পাঠ পর্যায়ে রয়েছে কিন্তু রাজনৈতিক চর্চাতেও মিস্টিক (Mystic) শব্দটির ব্যবহার আজ অনিবার্য হয়ে পড়েছে। শিল্পে, সাহিত্যে মরমীয়া কল্পনা এবং রহস্যময়তা চেতনা বিধৌত হয়ে প্রকাশ পায় এবং সেখানে চিন্তা চর্চার পদ্ধতির সাথে রূপসৌন্দর্য প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্য থাকে অটুট। এখানে প্রকাশের শ্রেণিবিন্যাস করা খুব কঠিনসাধ্য এবং ছন্দময়তাও অনেকক্ষেত্রে অনুপস্থিত থাকে। এক্ষেত্রে প্রকাশটা অলংকারবহুল হয় এবং সেটা যদি সত্যিকারের চরিত্র নির্মাণ বা বিষয় উপস্থাপনের জন্য হয়ে থাকে তবে সেটা নির্মিত হলে সুন্দরের চর্চাকে স্বার্থক করে তোলে। 

রাজনীতিতে অলংকার আরোপিত হয় ব্যাক্তির ওপর এবং এই অলংকারশাস্ত্র নির্মাণ হতে থাকে কৃত্রিম নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার জন্য যেখানে কর্ম আর চৈতন্যগত দিকদর্শনের উপস্থিতি থাকুক বা নাই থাকুক। এক্ষেত্রে সুখ এবং দুঃখের অনুভব বিদ্যমান। তবে অন্বিষ্ট রাজনৈতিক প্রক্রিয়ার মধ্যে সুখটা একপক্ষের জন্য নির্ধারিত যা সামগ্রিক বিচারে আপেক্ষিক ও তাৎপর্যহীন। আর দুঃখটা অপরপক্ষের যেখানে একমাত্র আশান্বিত থাকার উপায় হচ্ছে রাজনৈতিক রূপের পুনর্গঠন (Political Reproduction)  যা ক্ষমতার পরিবর্তনের মাধ্যমেই সম্ভব। আর এই দুঃখ বহনকারী নির্যাতীত গোষ্টীর পক্ষেই সমাজের সকল শ্রেণিপেশার এবং সকল ধর্ম-বর্ণের অনুতপ্তকামী মানুষের একধরনের মৌন সমর্থন রয়ে যায়, যেখানে মরমীয়া কল্পনা প্রকাশ করা ছাড়া ও রহস্যাবৃত পরিবর্তনের স্বপ্ন দেখা ব্যতীত আর কিছুই হয়তো সম্ভব নয়।

পৃথিবী বিখ্যাত দার্শনিক বেনেদেত্তো ক্রোচে বলেছেন, “সৌন্দর্য চিন্তায় চেতনার সমতা থাকা বড় প্রয়োজন।” তেমনি রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় গণতান্ত্রিক আন্দোলনেও চেতনার সমতা নির্মাণ করা অত্যন্ত প্রয়োজন। চেতনার সমতা প্রতিষ্ঠা করতে না পারলে গণতন্ত্রের কাঠামো টিকে থাকবে না এবং একই সাথে গণতন্ত্রের যে সৌন্দর্য (Beauty of  Democracy) তা নির্বাসিত হবে। 

সমকালীন বাংলাদেশের রাজনৈতিক চর্চায় ক্ষমতাকেন্দ্রিক একটা রাজনৈতিক কাঠামো তৈরি হয়েছে যেখানে নির্দিষ্ট দল বা মতের বাইরে ভিন্নমত প্রকাশের প্রক্রিয়াগুলো প্রায় বন্ধ। এই প্রক্রিয়ার মধ্যে রাজনীতির অবয়বে প্রকৃত রূপসৌন্দর্য অপ্রকাশিত যা সকল মতাদর্শিক চিন্তার বিয়োগান্তক (Tragic Form) রূপকে ছান্দসিক করে তোলার একটি ভুল কৌশল: যে কৌশলের আদৌ গণতান্ত্রিক রূপসৌন্দর্যকে (Beauty of Democrtic Form) নির্মাণ বা প্রকাশ করা সম্ভব নয়।

সমকালীন (২০০৮-২০১৮) বাংলাদেশের রাজনৈতিক চর্চায় (Tragic Form)  বা বিয়োগান্তক রূপনির্মাণের প্রচেষ্টা ও প্রতিষ্ঠা ক্ষমতার আদলে অব্যাহত আছে যেখানে ক্ষমতাকেন্দ্রিক মতাবলম্বীদের বাইরে ভিন্ন মতের রাজনৈতিক দল এবং দলের নেতাকর্মীদের ট্রাজিক ফর্মের আওতায় নিয়ে আসা হচ্ছে। Tragic Form  বা বিয়োগান্তক রূপনির্মাণের মূল বিষয়গুলো হচ্ছে শোষণ, নির্যাতন, অন্যায়, বিচারহীনতা, অর্থনৈতিক ও সামাজিক বৈষম্যকে প্রতিষ্ঠা করা। ট্রাজিক ফর্ম এর মাধ্যমে শিল্পী সাহিত্যিকরা সামগ্রিক সাংস্কৃতিক ধারা এবং প্রবাহ সম্পর্কিত দৃশ্যমান রূপ তৈরি করে থাকেন। গণতান্ত্রিক চর্চার বিপরীতে দলীয় ক্ষমতা প্রয়োগের মাধ্যমে বাংলাদেশের নাগরিক অধিকার প্রতিষ্ঠার বিপরীতে একটি অমানবিক রাষ্ট্রযন্ত্র প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। 

সঞ্জয় দে রিপন

এরিস্টটল বিশ্বাস করতেন যে একটি দুঃখজনক চরিত্রের মাধ্যমে (Tragic Hero) মানুষ দুঃশ্চিন্তা ও উদ্বেগের প্রতি আগ্রহী হয়ে ওঠেন। অর্থাৎ রাষ্ট্র পরিচালনা করতে গিয়ে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা যদি নিজেই ভিন্নমত প্রকাশকারীদের ট্রাজিক হিরো হিসেবে সৃষ্টি করেন তবে সাধারণ মানুষ সমাজ এবং রাষ্ট্র নিয়ে দুশ্চিন্তায় পতিত হবে এবং দুঃখভোগকারীদের প্রতি মায়া মমতা বাড়বে। রাজনীতিতে বিয়োগান্তক রূপনির্মাণের সফলতা যুগের পর যুগ বঞ্চিত গোষ্ঠীর প্রতিনিধিদের হাতে ফিরে আসে এটাই প্রতিষ্ঠিত সত্য। 

গণতান্ত্রিক রূপসৌন্দর্য ফুটিয়ে তোলার জন্য মানবিক সমাজ প্রতিষ্ঠা করার ধারাকে অগ্রসর করতে হবে যেখানে বিদ্যা কল্পনার সাথে নীতির সুন্দর সমন্বয় সাধন করতে হবে। অর্থনৈতিকভাবে সাবলম্বি হবার সাথে সাথেই কিন্তু কোনো জাতি উন্নততর হয়ে ওঠে না। শুধুমাত্র ধনীক শ্রেণি দ্বারা সুমনোবৃত্তির জাতি গঠন করা সম্ভব নয়। মানসিক দৈন্যতা না ঘুচাতে পারলে কখনই সুন্দর রাষ্ট্রকাঠামো নির্মাণ করা সম্ভব নয়। ক্ষমতার লালসামুক্ত মানবসমাজ প্রতিষ্ঠা করতে না পারলে শুধু উন্নয়ন দিয়ে সুন্দর বাংলাদেশ নির্মাণ করা প্রায় অসম্ভব। 

সাম্প্রতিক বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠার জন্য অনেকেই বলেন, অনন্য উচ্চতায় আমাদের বাংলাদেশ। বিষয়টি যে বা যারাই উত্থাপন করছেন বা বলছেন সেটা সত্য নয়। কারণ অনন্য উচ্চতার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করার জন্য মহাসুন্দরের রাজনৈতিক চর্চা প্রতিষ্ঠা করা জরুরি। বিস্তৃত উদার অনুভূতি এবং চেতনাগত ভারসাম্যের মাধ্যমেই কেবল সুন্দরের উপস্থিতি নিশ্চিত করা যায় আর যখন এই সৌন্দর্য বা মতাদর্শিক চর্চা দুঃসাহসিক উদার ও চেতনা সমৃদ্ধ এক মহাসত্যকে স্পর্শ করার পর্যায়ে উন্নীত হয় তখনই কেবল মহাসুন্দরের রাজনীতিকে (Political Sublime) স্পর্শ করা সম্ভব। কিন্তু বাংলাদেশে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা এবং স্বাধীন চিন্তার প্রকাশময়তার (Expressiveness) প্রয়োগ বা বিস্তারে যদি শুধু বাধা নয় আঘাত অনিবার্যভাবেই আসে তবে সেক্ষেত্রে মহাসুন্দরের গণতান্ত্রিক কাঠামো নির্মাণ করা প্রায় অসম্ভব। আর অনন্য উচ্চতায় রাষ্ট্রীয় পরিচিতি পাবার বিষয়টিও যুক্তিহীন হয়ে পড়ে।

সমকালীন রাজনীতিতে ট্রাজিক ফর্মের ব্যবহারের মধ্য দিয়ে একটি আত্মঘাতী ও ক্ষমতালোভী গোষ্ঠী সাধারণের কাছে সুপরিচিত হয়ে উঠছে যাদের ভবিষ্যত রাজনীতিতে মানুষের আস্থা অর্জন করাটা হবে অনেক বেশি কষ্টকর। আর রাজনীতিতে ক্ষমতা আরোপের এই সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠিত করার ফলে গণতন্ত্রের সৌন্দর্য বিনষ্ট হচ্ছে।

সেফুদার সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ লবণ নিয়ে গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা: সরকার রাজস্ব আদায় ২ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে বুধবার থেকে বাস চলবে খুলনায় ৩৯তম বিসিএসে ৪ হাজার ৪৪৩ চিকিৎসক নিয়োগ অধ্যক্ষকে পুকুরে ফেলার ঘটনায় ছাত্রলীগের ৫ কর্মী গ্রেপ্তার খালেদা জিয়া দাঁড়াতে-বসতে বা হাতে তুলে খেতে পারেন না: রিজভী দুই সিটির ভোটবিরোধী ৩৬ কাউন্সিলর লবণ নিয়ে গুজবে কান না দেয়ার পরামর্শ কেজিপ্রতি ১০০ টাকা হওয়ার গুজবে লবণ কেনার হিড়িক খালেদার মুক্তির দাবিতে ২৩ নভেম্বর বিএনপির সমাবেশ খালেদার মুক্তির দাবিতে ২৩ নভেম্বর বিএনপির সমাবেশ খালেদার মুক্তির দাবিতে ২৩ নভেম্বর বিএনপির সমাবেশ খালেদার মুক্তির দাবিতে ২৩ নভেম্বর বিএনপির সমাবেশ ৩০ মামলার আসামি ‘পটেটো রুবেল’ অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ৩০ মামলার আসামি ‘পটেটো রুবেল’ অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ৩০ মামলার আসামি ‘পটেটো রুবেল’ অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ৩০ মামলার আসামি ‘পটেটো রুবেল’ অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার প্রেম করছি কিন্তু বিয়ের দিন এখনও ঠিক হয়নি: জয়া অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের পাকিস্তানে অনুপ্রবেশের দায়ে ২ ভারতীয় গ্রেপ্তার মিথিলার সঙ্গে বিয়ে নিয়ে এবার মুখ খুললেন সৃজিত সাংবাদিকের চোখ হারানোর প্রতিবাদে চোখে ব্যান্ডেজ লাগিয়ে সংবাদ পাঠ এবার কন্যাসন্তানের বাবা হলেন তামিম প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরছেন রাতে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ালমার্ট স্টোরে গুলিতে নিহত ৩ ‘বন্দুকযুদ্ধে’ জনসংহতির ৩ সদস্য নিহত তারেক রহমানই ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার কাজ শুরু করেন: ফখরুল রিভিউ পরিবর্তন: ইমনের পরিবর্তে কায়কোবাদ ২৮৭ জনকে নিয়োগ দিবে দুদক