artk
বুধবার, জুন ১৯, ২০১৯ ১২:০৬   |  ৫,আষাঢ় ১৪২৬

স্টাফ রিপোর্টার

বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী ৭, ২০১৯ ৮:৫২

সাত মাসে রফতানি আয় ২ হাজার ৪১৮ কোটি মার্কিন ডলার

media

চলতি অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল দুই হাজার ২৪০ কোটি ৭০ লাখ ডলার। এর বিপরীতে আয় হয়েছে দুই হাজার ৪১৮ কোটি ডলার

চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে (জুলাই-জানুয়ারি) রফতানি আয় বেড়েছে আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১৩ দশমিক ৩৯ শতাংশ। এ সময়ে রফতানি আয় হয়েছে দুই হাজার ৪১৮ কোটি মার্কিন ডলার যা লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় সাত দশমিক ৯১ শতাংশ বেশি।

অন্যদিকে, একক মাস হিসেবে সর্বশেষ জানুয়ারি মাসে রফতানি আয় আগের বছরের একই মাসের তুলনায় সাত দশমিক ৯৫ শতাংশ বেড়েছে।

রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল দুই হাজার ২৪০ কোটি ৭০ লাখ ডলার। এর বিপরীতে আয় হয়েছে দুই হাজার ৪১৮ কোটি ডলার। আর গত অর্থবছরের একই সময়ে আয় হয়েছিল দুই হাজার ১৩২ কোটি ৪৯ লাখ ডলার।

অন্যদিকে, জানুয়ারি মাসে ৩৬২ কোটি ডলারের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে রফতানি আয় হয়েছে ৩৬৮ কোটি ডলার। সুতরাং লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় গত মাসে রফতানি আয় এক দশমিক ৫৯ শতাংশ বেশি হয়েছে। গত অর্থবছরের জানুয়ারিতে রফতানি আয়ের পরিমাণ ছিল ৩৪০ কোটি ৮৮ লাখ ডলার।

প্রধান রফতানি পণ্য পোশাক খাতের আয় ধারাবাহিকভাবে ভালো হওয়ায় রফতানিতে ইতিবাচক প্রবৃদ্ধির ধারা অব্যাহত রয়েছে বলে ব্যবসায়ীরা মনে করছেন।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ-জার্মান চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (বিজিসিসিআই)’র সভাপতি ব্যারিস্টার ওমর সাদাত বলেন, “বাংলাদেশের রফতানি খাত মূলত পোশাক নির্ভর। রফতানিতে পোশাক খাতের অবদান দিন দিন বাড়ছে। এর পাশাপাশি ব্যবসায় পরিবেশ বিশেষ করে গ্যাস-বিদ্যুৎ পরিস্থিতি আগের তুলনায় ভালো হওয়ায় রফতানি আয়ে ভালো প্রবৃদ্ধি হচ্ছে।”

তিনি রফতানি আয় সম্প্রসারণে প্রচলিত বাজার ছাড়াও নতুন বাজার সম্ভাবনাকে কাজে লাগানো এবং পণ্য বহুমুখীকরণ বিশেষ করে বেশি মূল্য সংযোজন হয় এমন পণ্য রফতানির প্রতি মনোযোগ দেয়ার পরামর্শ দেন।

ঢাকা চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি’ (ডিসিসিআই) সাবেক সভাপতি আবুল কাশেম খান বলেন, “ব্যবসায় অনুকূল পরিবেশ আগের তুলনায় ভালো হওয়ায় পোশাক খাত দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। তবে অবকঠামোখাতে প্রয়োজনীয় উন্নয়ন করা গেলে রফতানি আয় আরো বাড়বে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

তিনি পোশাকের পাশাপাশি অন্যান্য পণ্য রফতানি বাড়াতে বৈচিত্র্যপূর্ণ শিল্প পণ্যের ক্ষেত্রে সরকারের নীতি সহায়তা ও প্রণোদনা দেয়ার সুপারিশ করেন।

ইপিবির হালনাগাদ প্রতিবেদন অনুযায়ী, পোশাক খাতের নিট পণ্য (সোয়েটার, টি-শার্ট জাতীয় পোশাক) রফতানি আয় ও প্রবৃদ্ধি লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় দুই-ই বেড়েছে। ৯২৭ কোটি ৮৮ লাখ ডলারের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে রফতানি আয় দাঁড়িযেছে এক হাজার ১৪ কোটি ডলার। প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৩ দশমিক ৮৬ শতাংশ। গতবছরের একইসময়ে এই খাতে রফতানি ছিল ৮৯০ কোটি ৬৩ লাখ ডলার।

আলোচ্য সময়ে ওভেন পণ্যেও (শার্ট, প্যান্ট জাতীয় পোশাক) রফতানি আয় আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় বেড়েছে। এক্ষেত্রে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৫ দশমিক ১৮ শতাংশ। ৯৫০ কোটি ২২ লাখ ডলারের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ওভেন পণ্য রফতানি হয়েছে এক হাজার ৭ কোটি ৬৯ লাখ ডলারের। গতবছরের একই সময়ে এর পরিমাণ ছিল ৮৭৪ কোটি ৮৭ লাখ ডলার।

জুলাই-জানুয়ারি সময়ে বড় পণ্যের মধ্যে প্লাস্টিক পণ্যের রফতানি আয় বেড়েছে। এই খাতে রফতানি আয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ছয় কোটি ৭০ লাখ ডলার, যার প্রবৃদ্ধি ১৯ দশমিক ৬৬ শতাংশ। মাছ রফতানিতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে উল্লেখ করার মত। এ সময়ে ৩৬ কোটি ১০ লাখ ডলারের মাছ রফতানি হয়েছে। এর প্রবৃদ্ধি ২ দশমিক শুন্য ১ শতাংশ। তবে চামড়া ও চামড়জাত এবং পাট ও পাট পণ্যের রফতানি গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় কমেছে।

গতবছরের প্রথম সাত মাসে চামড়া ও চামড়জাত পণ্যের রফতানি ছিল ৭০ কোটি ৯৫ লাখ ডলারের, এবারের একই সময়ে এর পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬২ কোটি ৬৪ লাখ ডলার। চলতি অর্থবছরের সাত মাসে পাট ও পাটজাত পণ্য রফতানি হয়েছে ৪৯ কোটি ৮৬ লাখ ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ে এর পরিমাণ ছিল ৬৬ কোটি ১৮ লাখ ডলার।

এছাড়া কৃষিজাত পণ্যের রফতানি আয় বেড়েছে। এ সময়ে ৫৭ কোটি ৯৬ লাখ ডলারের কৃষিজাত পণ্য রফতানি হয়েছে। প্রবৃদ্ধি ৬১ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ। 

পাশাপাশি আসবাবপত্র, হস্তশিল্প, বিশেষায়িত টেক্সটাইল পণ্য, রাসায়নিক পণ্য ও পাদুকার রফতানি বেড়েছে। তবে হোম টেক্সাটাইলসহ কয়েকটি পণ্য রফতানি গত অর্থবছরের তুলনায় কমেছে।

বিকল্প পথে ঢাকা থেকে সিলেট, দীর্ঘ যানজট আকাশের তৈরি সেই পরিবেশবান্ধব গাড়ি চালালেন ডিসি ‘পাসওয়ার্ড’ ছবির বিরুদ্ধে সেন্সর বোর্ডে অভিযোগ রেস্টুরেন্টে আফগান ক্রিকেটারদের ঝগড়াঝাঁটি প্রেমের টানে জার্মান নারী স্বামী-সংসার ফেলে খুলনায় যশোরে গণপিটুনিতে সন্ত্রাসী নিহত উবার চালককে পেটানোর ভিডিও করায় নিগৃহীত মিস ইন্ডিয়া বর্ষা ঋতুতে ব্যাঙ দাঁতে পেনসিল রেখে, বুড়ো আঙুলে ফুঁ দিয়েও সমস্যায় মুক্তি সৌদির প্রথম নারী পাইলট ইয়াসমিন মেসিদের দেখে ক্রুদ্ধ ম্যারাডোনা বগুড়ায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ গুলিবিদ্ধ ৮ মামলার আসামির মৃত্যু মিষ্টি কুমড়ায় যেসব ফাস্টফুড খাবার তৈরি করা যায় গোল করেও গোলশূন্য ড্র ব্রাজিলের হেসেখেলেই আফগানদের হারালো ইংল্যান্ড বিষাক্ত পোল্ট্রি-ফিস ফিড: ৬ কারখানা সিলগালা, ১০ জনের কারাদণ্ড ডোমিনিকান রিপাবলিক: মার্কিন পর্যটকদের মৃত্যুকূপ ঢাকাগামী সুন্দরবন-১০ লঞ্চে আগুন জাপানে শক্তিশালী ভূমিকম্প, সুনামি সতর্কতা জারি গাজীপুরে আ.লীগ প্রার্থী জয়ী, বিএনপি নেতার ভোট বর্জন ভাগনে অপহরণ: ফেসবুক লাইভে যা বললেন সোহেল তাজ আব্বাস: বদলে যাওয়া এক নিরব সব বিমানবন্দরে ডগ স্কোয়াড গঠনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর রূপপুর প্রকল্পের বালিশ-কাণ্ডে সংসদীয় কমিটির অসন্তোষ মিশরের প্রথম বৈধ প্রেসিডেন্ট মুরসির উত্থান যেভাবে দুষ্টু লোকজন সামান্য গণ্ডগোলের চেষ্টা করেছে: ইসি সচিব তুরস্কে মুরসির গায়েবানা জানাজায় জনতার ঢল দেশব্যাপী বিড়ি শ্রমিকদের বিক্ষোভ, মানববন্ধন ৩৬ বছরের লজ্জার রেকর্ড এখন রশিদের মোবাইলে লেনদেনে নতুন করে চার্জের সুযোগ নেই: বিটিআরসি