artk
বুধবার, জুন ১৯, ২০১৯ ১২:০০   |  ৫,আষাঢ় ১৪২৬

মো. রুবেল ইসলাম তাহমিদ, (মুন্সিগঞ্জ) সংবাদদাতা

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৪, ২০১৯ ৯:১১

মাটি খননে বেরিয়ে আসছে রাজা বল্লাল সেনের দুর্গ

media
বল্লাল সেনের নামেই এই এলাকা এখনো বল্লাল বাড়ি নামেই পরিচিত। মাটির কয়েক ফুট  খনন করা হলে প্রাচীন ইট, ইটের টুকরো, মৃৎপাতের টুকরো, চারকল পাওয়া যায়। কিছুটা গভীরে খনন করলে দেয়ালের অংশ বেরিয়ে আসে। 

বঙ্গদেশে ১১৬০-১১৭৯ খিস্টাব্দ পর্যন্ত রাজত্বকারী সেন বংশের দ্বিতীয় রাজা বল্লাল সেনের রাজধানী ও প্রাসাদ ছিল তৎকালীন বিক্রমপুরের (বর্তমান মুন্সীগঞ্জ) রামপালে। তবে কালের বিবর্তনে এটি  ইতিহাসের অংশ হলেও রাজা বল্লাল সেনের প্রাসাদ বা দুর্গ হারিয়ে গিয়েছিল বহুকাল আগেই। এবার মুন্সীগঞ্জের সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের বল্লালবাড়ি এলাকায় প্রত্নতাত্ত্বিক খননে বেরিয়ে এসেছে হাজার বছরের পুরনো ঐতিহাসিক রাজা বল্লাল সেনের দুর্গের দেয়ালসহ ইটের ও মৃৎপাতের টুকরা। 

খনন কাজের নেতৃত্বে থাকা জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. সুফি মুস্তাফিজুর রহমান জানান, বল্লাল সেনের নামেই এই এলাকা এখনো বল্লাল বাড়ি নামেই পরিচিত। মাটির কয়েক ফুট  খনন করা হলে প্রাচীন ইট, ইটের টুকরো, মৃৎপাতের টুকরো, চারকল পাওয়া যায়। কিছুটা গভীরে খনন করলে দেয়ালের অংশ বেরিয়ে আসে। 

তিনি জানান, গত এক সপ্তাহ ধরে অনুসন্ধান করা হচ্ছে। 

সোমবার থেকে অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের তত্ত্বাবধানে পরীক্ষামূলকভাবে এই খনন কাজ শুরু করা হয়। মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিনেও খনন কাজে বেরিয়ে আসে আরো বেশ কিছু প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন। 

বুধবার সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, এলাকাটির স্থানীয় নুরুল ইসলাম শেখের কাঠবাগানে চলছে খনন কাজ। খনন কাজে অংশ নিয়েছেন  ড. সুফি মুস্তাফিজুর রহমানসহ চীনের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. চাই হুয়ান। এছাড়াও ৪-৫ জন বিশেজ্ঞের নির্দেশনায় কাজ করছে সত্তুরের অধিক শ্রমিক। ইতিমধ্যে স্থানটির তিন মিটার দৈর্ঘ্য-প্রস্থ ও তিন মিটারের বেশি গভীর গর্ত খনন করা হয়েছে। 

সুফি মুস্তাফিজুর রহমান বলেন, “এ স্থানটির চারপাশে এখনো পরিখা দৃশ্যমান রয়েছে, যার প্রস্থ ৬০ মিটার। খনন কাজে ইতিমধ্যেই অনেক প্রত্ননিদর্শন পাওয়া গেছে। আরো খনন করলে আরো বেশি নিদর্শন পাওয়া যাবে। এই স্থানটির মাটির নিচেই দুর্গ ও প্রাসাদটি আছে। বেশি খনন করা গেলে এর চরিত্র সম্পর্কে বোঝা যাবে। আপাতত পরীক্ষামূলকভাবে খনন চলছে, পরবর্তীতে বড় ধরনের খনন করার  সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।”

আকাশের তৈরি সেই পরিবেশবান্ধব গাড়ি চালালেন ডিসি ‘পাসওয়ার্ড’ ছবির বিরুদ্ধে সেন্সর বোর্ডে অভিযোগ রেস্টুরেন্টে আফগান ক্রিকেটারদের ঝগড়াঝাঁটি প্রেমের টানে জার্মান নারী স্বামী-সংসার ফেলে খুলনায় যশোরে গণপিটুনিতে সন্ত্রাসী নিহত উবার চালককে পেটানোর ভিডিও করায় নিগৃহীত মিস ইন্ডিয়া বর্ষা ঋতুতে ব্যাঙ দাঁতে পেনসিল রেখে, বুড়ো আঙুলে ফুঁ দিয়েও সমস্যায় মুক্তি সৌদির প্রথম নারী পাইলট ইয়াসমিন মেসিদের দেখে ক্রুদ্ধ ম্যারাডোনা বগুড়ায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ গুলিবিদ্ধ ৮ মামলার আসামির মৃত্যু মিষ্টি কুমড়ায় যেসব ফাস্টফুড খাবার তৈরি করা যায় গোল করেও গোলশূন্য ড্র ব্রাজিলের হেসেখেলেই আফগানদের হারালো ইংল্যান্ড বিষাক্ত পোল্ট্রি-ফিস ফিড: ৬ কারখানা সিলগালা, ১০ জনের কারাদণ্ড ডোমিনিকান রিপাবলিক: মার্কিন পর্যটকদের মৃত্যুকূপ ঢাকাগামী সুন্দরবন-১০ লঞ্চে আগুন জাপানে শক্তিশালী ভূমিকম্প, সুনামি সতর্কতা জারি গাজীপুরে আ.লীগ প্রার্থী জয়ী, বিএনপি নেতার ভোট বর্জন ভাগনে অপহরণ: ফেসবুক লাইভে যা বললেন সোহেল তাজ আব্বাস: বদলে যাওয়া এক নিরব সব বিমানবন্দরে ডগ স্কোয়াড গঠনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর রূপপুর প্রকল্পের বালিশ-কাণ্ডে সংসদীয় কমিটির অসন্তোষ মিশরের প্রথম বৈধ প্রেসিডেন্ট মুরসির উত্থান যেভাবে দুষ্টু লোকজন সামান্য গণ্ডগোলের চেষ্টা করেছে: ইসি সচিব তুরস্কে মুরসির গায়েবানা জানাজায় জনতার ঢল দেশব্যাপী বিড়ি শ্রমিকদের বিক্ষোভ, মানববন্ধন ৩৬ বছরের লজ্জার রেকর্ড এখন রশিদের মোবাইলে লেনদেনে নতুন করে চার্জের সুযোগ নেই: বিটিআরসি মুরসির জানাজা কারাগারেই, দাফন হলো নীরবে