artk
মঙ্গলবার, মার্চ ২৬, ২০১৯ ৯:২৮   |  ১২,চৈত্র ১৪২৫

স্বাস্থ্য-পুষ্টি ডেস্ক

রোববার, জানুয়ারি ১৩, ২০১৯ ৯:১৫

দামে সস্তা কলমি শাকের উপকারিতা

media
দামে খুব স্বস্তা অথচ পুষ্টিগুণে অনন্য এমন খাবারের নামের তালিকায় উঠে আসবে কলমি শাকের নাম

কলমি শাক আঁশজাতীয় একটি খাবার। এতে প্রচুর পরিমাণে খাদ্যউপাদান রয়েছে । এটি চোখ ভালো রাখে, হজমে সাহায্য করে এবং রক্তে হিমোগ্লোবিনের অনুপাত ঠিক রাখে। ভর্তা কিংবা ভাজি করে তরকারি হিসেবে খাওয়া হয় এই কলমি শাক। কলমি শাকে রয়েছে অনেক ওষুধী গুণ। এর মধ্যে বেশ কিছু গুণের কথা আজ আলোচনা করব। দামে খুব স্বস্তা অথচ পুষ্টিগুণে অনন্য এমন খাবারের নামের তালিকায় উঠে আসবে কলমি শাকের নাম। কলমি শাক মূলত ভাজি অথবা ঝোল রান্না করে ভাতের সঙ্গে খাওয়া হয়। এছাড়া এই শাক দিয়ে পাকোড়া, বড়া ইত্যাদি তৈরি করে খাওয়া যায়।

পুষ্টিমাণ: 

প্রতি ১০০ গ্রাম কলমি শাকে পাওয়া যায় ২৯ কিলোক্যালোরি, সোডিয়াম ১১৩ মিলিগ্রাম, পটাসিয়াম ৩১২ মিলিগ্রাম, খাদ্যআঁশ ২.১ গ্রাম, প্রোটিন ৩ গ্রাম, কর্বোহাইড্রেটস ৫.৪ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৭৩ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ৫০ মিলিগ্রাম, লৌহ ২.৫ মিলিগ্রাম, জলীয় অংশ ৮৯.৭ গ্রাম।

উপকারিতা:

১. কলমি শাকে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম থাকে বলে এ শাক হাড় মজবুত করতে সাহায্য করে। তাই ছোটবেলা থেকেই শিশুদের কলমি শাক খাওয়ালে তাদের আর বাজারের প্রচলিত চটকদার ফুড সাপ্লিমেন্টের দরকার হয় না।

২. কলমি শাকে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন 'সি'। এটি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে এবং শরীরের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ করে।

৩. কলমি শাক বসন্ত রোগের প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে।

৪. পর্যাপ্ত পরিমানে লৌহ থাকায় এই শাক রক্ত শূন্যতার রোগীদের জন্য দারুণ উপকারি।

৫. জন্মের পর শিশু মায়ের বুকের দুধ না পেলে মাকে কলমি শাক রান্না করে খাওয়ালে শিশু পর্যাপ্ত পরিমানে দুধ পাবে। বাচ্চারা যদি মায়ের দুধ কম পায় সেইক্ষেত্রে কলমি শাক ছোট মাছ দিয়ে রান্না করে খেলে মায়ের দুধ বাড়বে এবং তখন বাচ্চা দুধ পাবে।

৬. নিয়মিত কলমি শাক খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়। কোষ্ঠ কাঠিন্য বা হলে কলমি শাক তুলে সেচে এক পোয়া পরিমাণ রস করে আখের গুড়ের সঙ্গে মিশিয়ে শরবত বানিয়ে সকাল-বিকেল এক সপ্তাহ খেলে ভালো উপকার পাওয়া যাবে।

৭. যদি কারো ফোড়া এই কলমি পাতা তুলে একটু আদাসহ পাটায় বেটে ফোড়ার চারপাশে লেপে দিয়ে মাঝখানে খালি রাখতে হবে। তিন দিন এইভাবে লেপে দিলে ফোড়া গলে যাবে এবং পুঁজ বেরিয়ে শুকিয়ে যাবে।

৮. বাগি বা ফোড়া উঠলে এই কলমি পাতা বেটে প্রলেপ দিলে বাগি মিশে যাবে।

৯. রাত কানা রোগ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এই কলমি শাক কয়েক সপ্তাহ প্রতিদিন একবেলা ভাজি রান্না করে খেলে রাত কানা রোগ ভালো হয়।

১০. গর্ভাবস্থায় গর্ভবতী মায়েদের শরীরে, হাতে-পায়ে পানি আসে, সেই সময় কলমি শাক বেশি করে রসুন দিয়ে ভেজে তিন সপ্তাহ খেলে পানি কমে যাবে।

১১. গণরিয়া রোগ হলে প্রস্রাবের জায়গায় জ্বালা যন্ত্রণা করে। সেই সময় কলমির রস করে ৩/৪ চামচ পরিমাণ ৩ সপ্তাহ খেলে ওই জ্বালা কমে যায়।

১২. হাত-পা বা শরীর জ্বালা করলে কলমি শাকের রসের সঙ্গে একটু দুধ মিশিয়ে সকালে খালি পেটে এক সপ্তাহ খেলে উপকার পাওয়া যায়।

১৩. পিঁপড়া, মৌমাছি, বিছা বা কোন পোকা-মাকড় কামড়ালে এই কলমি শাকের পাতা ডগাসহ রস করে লাগালে যন্ত্রণা কমে যায়।

১৪. আমাশয় হলে কলমি পাতার রসের সঙ্গে আখের গুড় মিশিয়ে শরবত বানিয়ে সকাল-বিকেল নিয়মিত খেলে আমাশার উপশম হয়।

১৫. কলমিশাক চোখের জন্য বিশেষ উপকারী। কলমিশাক দৃষ্টিশক্তি প্রখর করে।

১৬. কলমি শাকে পর্যাপ্ত পরিমাণে খাদ্যশক্তি থাকায় শারীরিক দুর্বলতা দ্রুত সারিয়ে তুলতে সাহায্য করে। রোগীদেরকে দ্রুত সুস্থ হবার জন্য তাই কলমিশাক খাওয়ানো হয়ে থাকে।

১৭. কলমিশাক মূলত আঁশজাতীয় খাবার। তাই শরীরের খাবার দ্রুত হজমের জন্য কলমিশাক বিশেষ উপকারী।

১৮. কলমি শাকে পর্যাপ্ত পরিমাণে লৌহ থাকায় এই শাক রক্তশূন্যতার রোগীদের জন্য দারুণ উপকারী। সারা দেহে প্রয়োজনীয় রক্ত সরবরাহ ঠিক রাখতেও এই শাক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

১৯. নারীদের বিভিন্ন শারীরবৃত্তীয় সমস্যায় দ্রুত কাজ করে কলমিশাক।

২০. ঋতুশ্রাবের সমস্যা দূরীকরণে কলমি শাক উপকারী ভূমিকা পালন করে।

২১. নিয়মিত কলমি শাক খেলে হজমশক্তি বৃদ্ধি পায় এবং কোষ্ঠ কাঠিন্য দূর হয়। কোষ্ঠকাঠিন্য হলে কলমি শাকের সঙ্গে আখের গুড় মিশিয়ে শরবত বানিয়ে সকাল-বিকাল এক সপ্তাহ খেলে ভালো উপকার পাওয়া যায়। আমাশয় হলেও এ শরবত কাজ করে।

২২. যাদের মাঝে মাঝে বিনা কারণে মাথাব্যথা করার সমস্যা আছে তারা কলমি শাক খেলে উপকার পাবেন।

২৩. অনিদ্রা দূরীকরণেও কলমি শাক খেতে পারেন।

২৪. মাথার খুশকি দুর করতেও কলমি শাক কার্যকরী ভূমিকা রাখে।

ঐশ্বরিয়ার এই ছবি নিয়ে গুঞ্জন কেন? যুদ্ধের শঙ্কা আছে, পাকিস্তান প্রস্তুত: ইমরান খান ভোট কেনার অভিযোগে আ. লীগ নেতা বহিষ্কার! পুলিশ ডেকে খালি করতে হলো সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে মাশরাফির ভাবনায় ‘ফিনিশিং’ বিশ্বকাপের প্রস্তুতি প্রিমিয়ার লিগে নয়: মাশরাফি ইতালিতে গণহত্যা দিবস পালিত রাজধানীতে নির্মাণাধীন ভবন থেকে বাঁশ পড়ে নারীর মৃত্যু উত্তরা থেকে শিশু গৃহকর্মীর লাশ উদ্ধার, হত্যার অভিযোগ গোলান নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ বিএনপির চিকিৎসার জন্য জামিন পেলেন নওয়াজ শরিফ শাবি উপাচার্য বললেন, ‘এরা ছাত্রলীগ নামধারী জঙ্গি’ বাথরুমের গ্রিল ভেঙে আসামির পলায়ন ভারতের আকাশ দিয়ে মাহাথিরকে পাকিস্তানে যেতে দেয়া হয়নি রাস্তায় গাড়িবহর থামিয়ে তরমুজ বিক্রেতাকে ডাকলেন অর্থমন্ত্রী মশারি টানানোর লাঠি নিয়ে ৭ মার্চের ভাষণ শুনতে গিয়েছিলাম: সিইসি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিচারণ করে কাঁদলেন মাহবুব তালুকদার ফুল দিয়ে ফেরার পথে বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর হামলা বাংলাদেশে আমিত্ব একটি বড় সমস্যা: দুদক চেয়ারম্যান একসঙ্গে অন্তঃসত্ত্বা হাসপাতালের ৯ নার্স স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে এসে সড়ক দুর্ঘটনায় ২ স্কুলছাত্রী নিহত ষোলো আনা মুক্তির জন্য আন্দোলন অব্যাহত রাখতে হবে: ড. কামাল যশোরে প্রথম সন্তান জন্মের ২৬ দিন পর জমজ সন্তান প্রসব! হবিগঞ্জে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে হামলা, ২০ শিক্ষার্থী আহত জানেন কি ঢেঁড়সের এই উপকারিতাগুলো? স্বামী ও আমাকে হয়রানি করতেই এ মামলা: সালমা ফতুল্লায় ডাইং কারখানায় ভয়াবহ কেমিক্যাল বিস্ফোরণ টেকনাফে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে রোহিঙ্গা নিহত স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে দুর্ঘটনায় স্কুলছাত্রী নিহত সাংবাদিকদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারে বিএসইসির দুঃখ প্রকাশ