artk
বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৪, ২০১৯ ৮:১১   |  ১১,মাঘ ১৪২৫
শনিবার, জানুয়ারি ১২, ২০১৯ ৫:৩০

সড়ক ছাড়লেন পোশাকশ্রমিকরা, যান চলাচল স্বাভাবিক

স্টাফ রিপোর্টার
media

নতুন মজুরি কাঠামোর বাস্তবায়নসহ বিভিন্ন দাবিতে রাজধানীর মিরপুরের বিভিন্ন এলাকার সড়কে অবস্থা নিয়ে করা বিক্ষোভ তুলে নিয়েছেন পোশাকশ্রমিকরা। দুপুর ২টা থেকে ভিন্ন ভিন্ন এলাকার শ্রমিকরা দাবি পূরণের আশ্বাসে সরে যেতে শুরু করেন।

শনিবার (১২ জানুয়ারি) বিকেল ৩টার দিকে প্রায় পুরো এলাকা অবরোধমুক্ত হলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে আসে।

রোববার (৬ জানুয়ারি) থেকে বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারি) পর্যন্ত টানা পাঁচদিন রাজধানী, সাভার ও গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভ করেন শ্রমিকরা।

একদিনের বিরতিতে আবার শনিবার (১২ জানুয়ারি) রাজধানীসহ বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভে নামেন তারা।

এদিন সকাল ১০টার পর থেকে মিরপুরের শেওড়াপাড়া, মিরপুর-১৪, টোলারবাগ, বাংলা কলেজের সামনে ও টেকনিক্যাল এলাকায় অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন আশপাশের এলাকার পোশাকশ্রমিকরা। এরপর প্রতিদিনকার মতো গার্মেন্টস মালিক ও পুলিশের আশ্বাসে তারা সড়ক থেকে সরে যান। এর ফলে প্রায় ৫ ঘণ্টা পর মিরপুরের বিভিন্ন সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

ডিএমপির মিরপুর বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) মো. জামাল হোসেন জানান, গত কয়েকদিনের মতো আজও মিরপুরের বিভিন্ন এলাকায় শ্রমিকরা রাস্তা বন্ধ করে বিক্ষোভ করেন। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এসব এলাকায় বাড়তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

একপর্যায়ে গার্মেন্টস মালিক ও পুলিশ প্রশাসনের আশ্বাসে কোনো ধরনের ঝামেলা ছাড়াই শ্রমিকরা সরে যান। বর্তমানে পুরো এলাকার সার্বিক পরিস্থিতি ও যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে বলেও জানান তিনি।

শ্রমিকদের অভিযোগ, তাদের জন্য সরকার ঘোষিত নতুন বেতন কাঠামো নির্ধারণ করলেও মালিকপক্ষ তা দিচ্ছে না। মালিকপক্ষের কাছ থেকে বার বার আশ্বাস সত্ত্বেও বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছে তারা।

বেতন কাঠামোতে বৈষম্য দূর করাসহ বিভিন্ন দাবিতে ৬ জানুয়ারি থেকে থেকে আন্দোলন করছে পোশাক শ্রমিকরা। শ্রমিক বিক্ষোভ নিরসনে গত ৮ জানুয়ারি শ্রম ভবনে পোশাক শ্রমিক-মালিক ও সরকারের ত্রিপক্ষীয় বৈঠক হয়। সেখানে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, গত ১ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হওয়া পোশাক শ্রমিকদের বেতন কাঠামোতে কোনো বৈষম্য বা অসঙ্গতি থেকে থাকলে চলতি জানুয়ারি মাসের মধ্যেই তা সংশোধন করা হবে। ফেব্রুয়ারিতে সংশোধিত গ্রেডিংয়েই বেতন পাবে শ্রমিকরা।

বৈঠকে এ সমস্যা সমাধানে কমিটি গঠনেরও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ কমিটিতে গার্মেন্টস মালিকদের পাঁচজন, গার্মেন্টস শ্রমিকদের পাঁচজন এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দুই সচিব থাকবেন। এই কমিটি চলতি মাসের মধ্যে পোশাক শ্রমিকদের জন্য সরকার ঘোষিত বেতন কাঠামোর কোনো গ্রেডের মধ্যে অসঙ্গতি থাকলে তা বিশ্লেষণ করে প্রতিবেদন জমা দেবে

নিউজবাংলাদেশ.কম/এএইচকে