artk
বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৪, ২০১৯ ৮:০৫   |  ১১,মাঘ ১৪২৫

সাভার (ঢাকা) সংবাদদাতা

সংবাদ ডেস্ক

বুধবার, জানুয়ারি ৯, ২০১৯ ১২:০২
শ্রমিকদের বিক্ষোভ

সাভার-আশুলিয়ার কিছু কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ

media
বেতন বৃদ্ধির দাবিতে সকালে টানা চতুর্থ দিনের মতো সাভারের উলাইল ও গেন্ডা এলাকার স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের শ্রমিকরা ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে।

সরকারি মজুরি কাঠামো বৃদ্ধি, বাস্তবায়ন ও সাভারে ‘শ্রমিক হত্যার’ বিচারের দাবিতে শ্রমিকদের বিক্ষোভের মুখে সাভার ও আশুলিয়ায় কিছু পোশাক কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। 

বুধবার সকালে সাভারের উলাইল ও গেন্ডা এলাকায় একটি তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিকরা রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে। পরে পুলিশ তাদের রাস্তা থেকে সরিয়ে দেয়।

এদিকে রাজধানীর মিরপুরেও চতুর্থদিনের মতো সড়ক অবরোধ করেছে পোশাক শ্রমিকরা।

গত চারদিন ধরে সরকার ঘোষিত বেতনের দাবিতে রাজধানীসহ বিভিন্ন এলাকায় আন্দোলন করছেন পোশাকশ্রমিকরা।

অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ কারখানাগুলোর মধ্যে রয়েছে- সাভারের উলাইল ও হেমায়েতপুরের বাগবাড়ি এলাকায় স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের তিনটি ও আশুলিয়ার চারাবাগ এলাকার মেট্রো নিটিং অ্যান্ড ডাইং লিমিটেড।

শিল্প পুলিশ জানিয়েছে, বেতন বৃদ্ধির দাবিতে সকালে টানা চতুর্থ দিনের মতো সাভারের উলাইল ও গেন্ডা এলাকার স্ট্যান্ডার্ড গ্রুপের শ্রমিকরা ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে।

এক পর্যায়ে কারখানায় ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে কারখানা ভেতরে থাকা লোকজনও শ্রমিকদের দিকে পাল্টা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে।

সকালে আশুলিয়ার কাঠগড়া এলাকায় টেক্সটাউন গার্মেন্টসসহ প্রায় পাঁচটি গার্মেন্টেসের শ্রমিকরা বিশমাইল জিরাবো সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে।

শ্রমিক বিক্ষোভের জের ধরে বুধবার ওই চারটি পোশাক কারখানা অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে কারখানার মূল ফটকে নোটিস টানিয়ে দেয় মালিকক্ষ।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ওই পোশাক কারখানার শ্রমিকরা আশেপাশে অবস্থান করছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পোশাক কারখানাগুলোর সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। প্রস্তুত রয়েছে পুলিশের জলকামান ও সাঁজোয়া যানবাহন।

এছাড়াও গতকাল সংঘর্ষে উলাইল এলাকার আনলিমা টেক্সটাইল এর সুমন নামের এক শ্রমিক নিহত হওয়ার জের ধরে বুধবার ওই পোশাক কারখানাটি একদিনের জন্য সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে।

টানা চতুর্থ দিনের মতো কারখানাগুলোতে উৎপাদন বন্ধ থাকায় মালিকরা চরম বিপাকে পড়েছে।

এ বিষয়ে শিল্প পুলিশ-১ এর পরিচালক শানা শামীনুর রহমান বলেন, “পোশাক কারখানাগুলোতে কাজের গতি ফিরিয়ে আনার জন্য পুলিশ মালিকপক্ষের সাথে আলোচনা করে যাচ্ছে।”