artk
মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বার ২৪, ২০১৯ ২:৪৮   |  ৮,আশ্বিন ১৪২৬
শুক্রবার, মে ১, ২০১৫ ১২:১৭

‘সাহেব’ এসেছে আমেরিকা থেকে, মাতাচ্ছে ঢাকা

media

ঢাকা: ‘সাহেবের’ জন্ম সুদূর আমেরিকায়। ছোটবেলাটা কেটেছে ওখানেই। বড় হওয়ার আগেই সাতসমুদ্র তের নদী পাড়ি দিয়ে চলে এসেছে বাংলাদেশে। এখানেই এখন তার ঘরবসতি। পাঁচ বছরের বাংলাদেশ জীবনে কেবল খাওয়া আর ঘুমানোই কাজ নয়। প্রতিদিন অসংখ্য মানুষকে আনন্দে মাতিয়ে রাখে সাহেব। তাকে দেখতে মানুষের ভীড় লেগে যায়, পড়ে যায় সাহেবের ছবি তোলার ধুম।

সাহেব থাকে রাজধানীর হাতিরপুলে। বিকেল হলেই চলে যায় মোতালেব প্লাজার সামনে। আর সেখানেই তাকে দেখতে জটলা বাঁধে মানুষের। সন্ধ্যা অবধি থেকে ফিরে যায় নিজের ঘরে। গত পাঁচ বছর ধরে এটাই ‘সাহেবের’ কাজ।

আমেরিকা থেকে আসা এ ‘সাহেব’ এক উন্নত প্রজাতির টার্কিস মোরগ। বাংলাদেশে উড়ে আসেনি। ইয়াকুব বিন য়ামীন নামে এক পাখিপ্রেমীর হাত ধরে এসেছে। কেবল একাই না, সঙ্গে এসেছে ‘সাহেবের’ জীবন সঙ্গী মেরিসহ আরেক দম্পতি বংশী ও ময়না। ২০১০ সালে বাংলাদেশে তাদের পদার্পণ। ইয়াকুব আদর করে এ মোরগটির নাম দিয়েছেন ‘সাহেব’।

ইয়াকুব বিন য়ামীনের বাসার ছাদেই ‘সাহেব’ ও তার সঙ্গীদের থাকার জায়গা। ছোট্ট ছিমছাম ঘরেই দিন কাটে। ইয়াকুব জানান, পশু-পাখির প্রতি তার আগ্রহ অনেক। ছোটবেলা থেকেই এ আগ্রহ তার মধ্যে। আমেরিকায় বোনের বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে এ মোরগ দেখে বাংলাদেশে নিয়ে এসেছেন তিনি। এখন তার সময় কাটে মোরগ, বিড়াল, পাখি আর গাছের পরিচর্যা করে।

বিকেল হলেই ‘সাহেবকে’ নিয়ে মোতালেব প্লাজার সামনে চলে যান ইয়াকুব। সন্ধ্যা পর্যন্ত সময় কাটান ওখানে। ভিন্নজাতের বড় আকারের এ মোরগ দেখে মানুষের মাঝে তৈরি হয় নানা কৌতূহল। কেউ খাবার দেয়, কেউ আবার ছবি তুলে নিয়ে যায়। মানুষকে এমন আনন্দ দিতেও পছন্দ করেন ইয়াকুব। সেজন্যই তিনি ‘সাহেবকে’ নিয়ে বিকেলগুলো এভাবেই কাটান।

আমেরিকা থেকে ইয়াকুব নিয়ে এসেছেন চারটি মোরগ। এরমধ্যে দুটি পুরুষ ও দুটি নারী। এ দুই দম্পত্তি তিনমাস পর পর ডিম পাড়ে। সে ডিম থেকে গত পাঁচ বছরে জন্ম নেয় অর্ধশত বাচ্চা। আত্মীয় স্বজন ও শুভাকাঙ্খীদেরকেই সেগুলো দিয়ে দেন ইয়াকুব। তবে নিজের কাছেও রেখেছেন ১৪টি। বড় করে তুলছেন আদর যত্নে।

এ মোরগ দেখতে অনেকটা ময়ূরের মতো। পেছনের লেজ ছড়িয়ে দিলে ময়ূর বলে ভুল করতে পারেন যে কেউ। তবে গলার দিকে খানিকটা ঝোলানো। দূর থেকে দেখে রাগি মনে হলেও কারও ওপর কোনও আক্রোশ নেই সাহেবের’। কেউ আদর করতে চাইলে সহজেই চড়ে বসে তার কোলে।

ইয়াকুব বলেন, “আমার অবসর কাটে এদের সঙ্গেই। এদেরকে আমি সন্তানের মতো ভালবাসি। নিজ হাতে খাওয়াই। আমি ডাকলে সবকিছু ছেড়ে ছুটে আসে।”

কথা বলতে বলতে ইয়াকুব নিয়ে যান তার বাসার ছাদে। যেখানে দেখা মেলে আরও কয়েক প্রজাতির মোরগের সঙ্গে। শখেই এসব পালেন বলে জানান পঞ্চাশোর্ধ ইয়াকুব। তার পরিবারের অন্যরাও তার মতোই। স্ত্রী শাকিলা পেশায় হোমিও চিকিৎসক হলেও তারও অবসর কাটে পশু-পাখি পালন করেই। ইয়াকুবের এক ছেলে ও এক মেয়ে পড়াশোনা করছে চিকিৎসা বিজ্ঞানে। তাদেরও শখ পশু-পাখি ঘিরেই।

ইয়াকুব বলেন, “আমি চাই সবাই পশু-পাখির প্রতি যত্নবান হোক। সেজন্যই প্রতিদিন বিকেলে রাস্তার পাশে মানুষকে আমার মোরগ দেখাই। আমার তো আর কোনও চাওয়া নেই। মানুষ দেখে আনন্দ পায় আর এসব বোবা প্রাণীর প্রতি তাদের ভালোবাসা জন্মায়। এতেই আমার সুখ, আমার আনন্দ।’

নিউজবাংলাদেশ.কম/এমএ/এফএ

‘পরিচালক আমার শরীরের প্রতি ইঞ্চি দেখতে চেয়েছিলেন’ বেআইনি কর্মকাণ্ডের অভিযোগে কিশোরগঞ্জে বাণিজ্যমেলা বন্ধ ছাত্রদলের ওপর হামলা দেশের রাজনীতিতে অশনিসংকেত: ফখরুল ক্যাসিনো ব্যবসায়ীদের আয়কর ফাইল খতিয়ে দেখছে এনবিআর কখনো দাবি করিনি, আওয়ামী লীগ ধোয়া তুলসীপাতা: কাদের বাংলাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ দেবে ফেইসবুক ‘রোহিঙ্গাদের এনআইডি তৈরিতে ইসির ১৫ কর্মকর্তা-কর্মচারী জড়িত’ মগবাজারে ‘পিয়াসী বার’ ঘিরে রেখেছে পুলিশ মুশফিকের চেয়ে লিটন ফিল্ডিংয়ে ভালো! স্পা সেন্টারে অভিযান: রিমান্ডে ২ পুরুষ, কারাগারে ১৬ নারী ফাইনালে সেরা পারফরম্যান্স দেখতে চান প্রধান কোচ ডমিঙ্গো জয় নিয়েই দেশে ফিরতে চায় আফগানরা বাঘারপাড়ায় দুস্থদের চাল নিয়ে নয়ছয় ছাত্রদলের নতুন কমিটির কার্যক্রমে আদালতের স্থগিতাদেশ চীন সফরে তালেবান প্রতিনিধি দল ক্যাসিনোয় জড়িত কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে মন্ত্রণালয় ব্যবস্থা নেয়নি জমি দখলের অভিযোগে মোসাদ্দেক আলী ফালুর বিরুদ্ধে মামলা হবিগঞ্জে সাংবাদিক হত্যা মামলায় ৩ জনের যাবজ্জীবন ক্যাসিনো-জুয়া: ফু-ওয়াং ক্লাবে পুলিশের অভিযান হোয়াটসঅ্যাপ স্ট্যাটাস শেয়ার দেয়া যাবে ফেসবুকে আশুগঞ্জ পাওয়ার বন্ডের আইপিও আবেদন শুরু কেনিয়ায় স্কুল ধসে পড়ে ৭ শিশুর মৃত্যু মালয়েশিয়ার হাসপাতালে জয়নাল হাজারী চাঙ্গা পুঁজিবাজার রোহিঙ্গাদের এনআইডি: নির্বাচন কর্মকর্তাসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে দুদক মাছ উৎপাদনে বিশ্বে অষ্টম স্থানে বাংলাদেশ খুলনায় ৫ পুলিশের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা আফগানিস্তানে বিয়ের অনুষ্ঠানে সেনা হামলা: নিহত ৩৫ ‘গডফাদার-গ্র্যান্ডফাদার যারাই অপরাধ করবে শাস্তি পেতে হবে’ মাদক-দুর্নীতির চক্র না ভাঙ্গা পর্যন্ত অভিযান চলবে: কাদের