artk
বুধবার, নভেম্বার ২০, ২০১৯ ৩:৪৪   |  ৫,অগ্রহায়ণ ১৪২৬

স্টাফ রিপোর্টার

বৃহস্পতিবার, অক্টোবার ৩১, ২০১৯ ৯:৫৬

ঐক্য থাকলে কোনো শক্তি সামনেই দাঁড়াতে পারে না: ড. কামাল

media

ড. কামাল হোসেন: ফাইল ফটো

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, জনগণের ঐকমত্য থাকলে কোনো শক্তি তার সামনেই দাঁড়াতে পারে না।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, জনগণের ঐকমত্য থাকলে কোনো শক্তি তার সামনেই দাঁড়াতে পারে না।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর সুপ্রিম কোর্ট জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির ৪৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যের ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘জনগণের যেখানে ঐকমত্য আছে সেই ঐকমত্যের সামনে কোনো শক্তি দাঁড়াতে পারেনি। বন্দুক নিয়ে, কামান নিয়ে কোনো কিছু দাঁড়াতে পারেনি। বাঙালিরা যখন ঐকমত্যে আসে সেই শক্তি হলো পৃথিবীর সবচেয়ে বড় শক্তি। সেই শক্তির কাছাকাছি আমরা এসে গেছি।’

স্বাধীনতার ৫০ বছর হতে চললেও দেশে নানান বৈষম্য আছে উল্লেখ করে কামাল হোসেন বলেন, সংবিধানে আছে সুন্দর গণতান্ত্রিক সমাজ প্রতিষ্ঠা হবে, সুশাসনের বাতাস বইবে, অর্থনীতি জনগণের স্বার্থে পরিচালিত হবে, মানুষে মানুষে, গ্রাম শহরে বৈষম্য থাকবে না। কিন্তু স্বাধীনতার ৫০ বছর পরেও দেশে এ রকম বৈষম্য থাকবে তা তিনি কোনো দিন ভাবতে পারেননি বলে জানান।

ঐক্যফ্রন্ট নেতা বলেন, ‘স্বাধীনতার ৫০ বছর যখন হবে তখনো কি আমরা চাইব না যে মুক্তিযোদ্ধাদের যে স্বপ্ন, যে স্বপ্ন দেখে মানুষ জীবন দিয়েছিল, সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে যাচ্ছে সেটাই মানুষ দেখতে চায়।’

স্বাধীনতার ৫০ বছর পরে এসেও মানুষের রায়ের নির্বাচন হয় না বলে জানান কামাল হোসেন। তিনি স্বাধীনতার ৫০ বছরকে সামনে রেখে সবাইকে জেলায় জেলায় মানুষের কাছে যাওয়ার আহ্বান জানান। এ ছাড়া বলেন, স্বাধীনতাকে অর্থপূর্ণ করতে হলে ৫০ বছর হওয়ার আগেই সংগঠিত হয়ে ইতিবাচক আন্দোলন ও শহীদদের স্বপ্ন বাস্তবায়নের আন্দোলন করার কথা জানান।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, একটি কল্যাণময় রাষ্ট্র নির্মাণের স্বপ্ন ছিল। কিন্তু স্বাধীনতার ৫০ বছর হতে চললেও সেই বাংলাদেশে দেখা যাচ্ছে না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা অনুযায়ী গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের স্বপ্নকে ধ্বংস করে দেওয়া হচ্ছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, বাকশালের মতো একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠা করতে চলেছে সরকার গণতন্ত্রের মুখোশ পরে। ভিন্নমতকে তারা ধ্বংস করে দিচ্ছে। এই সরকারকে সরাতে হবে। তা করতে হলে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

বিএনপির কারাবন্দী চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তাঁর স্বাস্থ্য এত খারাপ, তাঁর অসুখ এত বেড়েছে, সেটাকে গোপন করে পিজির (বিএসএমএমইউ) পরিচালক স্টেটমেন্ট দিয়েছে। আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে চাই, তাঁর শরীর এত খারাপ হয়েছে যে তিনি এখন নিজে উঠে দাঁড়াতে পারেন না। তিনি চেয়ারে ঠিকমতো বসতে পারেন না। নিজের খাবার নিজে খেতে পারেন না।’ খালেদা জিয়াকে ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়ার উদ্দেশ্যেই এসব হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

২৬ লাখ বিএনপির নেতা কর্মী মামলায় জড়িত এবং অনেককে হত্যা, পঙ্গু ও আহত করা হয়েছে জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, গণতান্ত্রিক কোনো দেশে গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করতে গিয়ে এত বড় মূল্য দিতে হয় না। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সরকারকে পরাজিত করার আহ্বান জানান ফখরুল।

কামাল হোসেনকে উদ্দেশ্য করে জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেন, আপনি আন্দোলনের ডাক দেন। আমরা আন্দোলন করব। তিনি বলেন, জাতীয় সরকার গঠন না হওয়া পর্যন্ত জেএসডির আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না জেএসডির ইতিহাস প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে জানান, বর্তমান সরকার ইতিহাস বিকৃত করছে। শুদ্ধি অভিযানে যাদের ধরা হচ্ছে সবই লীগের উল্লেখ করে বলেন, আর কোনো দল এখানে নেই। দুর্নীতি সব আওয়ামী লীগেই হচ্ছে। আসল দুর্নীতিবাজদের ধরা হচ্ছে না।

আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক রেজা কিবরিয়া, জাতীয় পার্টির (জাফর) সভাপতি মোস্তফা জামান হায়দার, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, জেএসডির সহসভাপতি তানিয়া রব, জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি নুরুল আমীন ব্যাপারী প্রমুখ।

কাউন্সিলর রাজিবের তিন গাড়ি জব্দ সেফুদার সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ লবণ নিয়ে গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা: সরকার রাজস্ব আদায় ২ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে বুধবার থেকে বাস চলবে খুলনায় ৩৯তম বিসিএসে ৪ হাজার ৪৪৩ চিকিৎসক নিয়োগ অধ্যক্ষকে পুকুরে ফেলার ঘটনায় ছাত্রলীগের ৫ কর্মী গ্রেপ্তার খালেদা জিয়া দাঁড়াতে-বসতে বা হাতে তুলে খেতে পারেন না: রিজভী দুই সিটির ভোটবিরোধী ৩৬ কাউন্সিলর লবণ নিয়ে গুজবে কান না দেয়ার পরামর্শ কেজিপ্রতি ১০০ টাকা হওয়ার গুজবে লবণ কেনার হিড়িক খালেদার মুক্তির দাবিতে ২৩ নভেম্বর বিএনপির সমাবেশ ৩০ মামলার আসামি ‘পটেটো রুবেল’ অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার প্রেম করছি কিন্তু বিয়ের দিন এখনও ঠিক হয়নি: জয়া অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের পাকিস্তানে অনুপ্রবেশের দায়ে ২ ভারতীয় গ্রেপ্তার মিথিলার সঙ্গে বিয়ে নিয়ে এবার মুখ খুললেন সৃজিত সাংবাদিকের চোখ হারানোর প্রতিবাদে চোখে ব্যান্ডেজ লাগিয়ে সংবাদ পাঠ এবার কন্যাসন্তানের বাবা হলেন তামিম প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরছেন রাতে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ালমার্ট স্টোরে গুলিতে নিহত ৩ ‘বন্দুকযুদ্ধে’ জনসংহতির ৩ সদস্য নিহত তারেক রহমানই ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার কাজ শুরু করেন: ফখরুল রিভিউ পরিবর্তন: ইমনের পরিবর্তে কায়কোবাদ ২৮৭ জনকে নিয়োগ দিবে দুদক ৫ দিনে রাজস্ব আদায় ১ হাজার ৬৫৮ কোটি টাকা শোভন-রাব্বানীসহ ১০৫ জনের সম্পদের অনুসন্ধানে দুদক মুনাফা ছাড়া পেঁয়াজ বিক্রির আহবান মেয়র খোকনের লোহাগড়ায় ডেঙ্গু জ্বরে যুবকের মৃত্যু সড়ক আইন বাস্তবায়ন হবেই: ওবায়দুল কাদের