artk
সোমবার, নভেম্বার ১৮, ২০১৯ ৩:২১   |  ৩,অগ্রহায়ণ ১৪২৬

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

বৃহস্পতিবার, অক্টোবার ১৭, ২০১৯ ৫:৫৩

ট্রাম্পের চিঠি ‘ডাস্টবিনে ছুঁড়ে ফেলেছিলেন’ এরদোয়ান

media

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের লেখা একটি চিঠি ‘ডাস্টবিনে ছুঁড়ে ফেলেছিলেন’ বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানা গেছে। 

প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ৯ অক্টোবর এই চিঠিটি লেখা হয় এবং সিরিয়া থেকে মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহারের পর এটা ওয়াশিংটন থেকে আংকারায় পাঠানো হয়।

চিঠিতে এরদোয়ানের উদ্দেশে ট্রাম্প লেখেন, “কঠিন হবেন না। বোকামি করবেন না।”

তুর্কি সংসদে বিবিসির সূত্রগুলো জানাচ্ছে, এরদোয়ান ঐ চিঠি পুরোপুরিভাবে খারিজ করে দিয়েছেন।

ওই চিঠি যে দিন তুরস্কের হাতে পৌঁছায় সেই দিনেই তুর্কি সামরিক বাহিনী সীমান্ত অতিক্রম করে উত্তর সিরিয়ায় কুর্দি বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে।

উত্তর সিরিয়া থেকে মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহারের পর ট্রাম্পের বিরুদ্ধে কড়া সমালোচনা হয়েছে। অনেকেই বলছেন, এই প্রত্যাহারের মধ্য দিয়ে তুরস্কের সেনা অভিযানের প্রতি একটা ‘সবুজ সঙ্কেত’ দেয়া হয়েছে। কিন্তু ট্রাম্পের সমালোচনার একটা বড় অংশ এসেছে তার নিজের দলের কাছ থেকে।

বিরল এক ঘটনায়, যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান দুটি দল যৌথভাবে আমেরিকার প্রেসিডেন্টকে ভর্ৎসনা করেছেন।

সংসদের নিম্ন কক্ষ হাউজ অব রেপ্রেজেনটেটিভে বিরোধীদল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির ১২৯ সদস্য বুধবার ট্রাম্পের নিন্দা করে যে ভোটের আয়োজন করেন- তাতে ক্ষমতাসীন রিপাবলিকান পার্টি সদস্যরাও যোগ দেন।

সৈন্য প্রত্যাহার প্রশ্নে মার্কিন সংসদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির সাথে ট্রাম্পের বৈঠকে উত্তপ্ত তর্ক-বিতর্ক হয়েছে বলেও জানা যাচ্ছে। বৈঠকের এক পর্যায়ে মিজ পেলোসি এবং সিনেট মাইনরিটি লিডার চার্লস শুমাখার বৈঠকে ছেড়ে চলে যান।

গত বুধবার ট্রাম্প মন্তব্য করেন, যুক্তরাষ্ট্র তুরস্কের সেনা অভিযানে হস্তক্ষেপ করবে না, কারণ, সিরিয়ার সীমান্ত "আমাদের সীমান্ত না" এবং কুর্দিরাও "কোন ফেরেশতা নন।"

তুরস্ক গত সপ্তাহে যে অভিযান শুরু করে তার দু'টি লক্ষ্য: প্রথমত ওয়াইপিজি নামে পরিচিত কুর্দি-সিরিয়ান মিলিশিয়া বাহিনীকে হটিয়ে দেয়া। তুরস্ক কুর্দি মিলিশিয়াদের সন্ত্রাসী হিসেবে বিবেচনা করে।

তুর্কি অভিযানের দ্বিতীয় লক্ষ্য: উত্তর সিরিয়ায় একটি 'নিরাপদ এলাকা' গড়ে তোলা যেখানে তুরস্কে বসবাসকারী প্রায় ২০ লক্ষ সিরিয়ান শরণার্থীদের এনে বসানো হবে।

সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কুর্দিরা যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র শক্তি ছিল।

ঐ অঞ্চলের পরিস্থিতি নাজুক হয়ে পড়লে সেখানে জিহাদি শক্তির পুনরুত্থান হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

নুডলস খাওয়া নিয়ে পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্রে চীনা শ্রমিক খুন পেঁয়াজের কেজি ৫৫ টাকার বেশি হলেই জরিমানা জাতির শত্রু মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ করতে হবে: অর্থমন্ত্রী মেলায় রাজস্ব আদায় ১ হাজার ৩৪৬ কোটি টাকা বিএনপির বেশিরভাগ নেতাই দলছুট: তথ্যমন্ত্রী পাবলিক ফান্ড আত্মসাতের আগেই তা রক্ষা সম্ভব: ইকবাল মাহমুদ শ্রীলংকার নতুন প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে বিডিবিএলের সাবেক জিএম কাদরীকে গ্রেপ্তার অর্থপাচার ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন রোধে সব দেশের সাহায্য প্রয়োজন: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ফরিদপুর মেডিক্যালের সাবেক পরিচালকসহ ১২ জনকে তলব বঙ্গবন্ধু বিপিএলে মাশরাফি-তামিমদের চেয়ে বেশি মূল্য আফ্রিদি-গেইলদের হলি আর্টিসান হামলার রায় ২৭ নভেম্বর জেড ক্যাটাগরিতে যুক্ত ৯ কোম্পানি অভিভাবকের আয়ের ভিত্তিতে বেতন নির্ধারণের সুযোগ দিবে ইউডা অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় ৬ দিনের রিমান্ডে সম্রাট প্রধানমন্ত্রীকে বিএনপির চিঠি সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধাদের অবসরের বয়সসীমা ৬০ মোরালেস সমর্থকদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষে নিহত ৯ স্বর্ণ কেনার আগে যেসব বিষয় অবশ্যই খেয়াল রাখা উচিত লঞ্চের ধাক্কায় বালুবাহী জাহাজ ডুবে ৩ শ্রমিক নিখোঁজ রাজধানীর বনশ্রী থেকে সাংবাদিকের মরদেহ উদ্ধার চট্টগ্রামের পাথরঘাটায় গ্যাস লাইন বিস্ফোরণে নিহত ৭ মুসলিমদেরও রাম মন্দিরের জন্য খুশি হওয়া উচিৎ: রামদেব সিরিয়ায় গাড়ি বোমা বিস্ফোরণে নিহত ১৮ পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধ: প্রধানমন্ত্রী যখন তখন হেসে ফেলেন? আপনার কী হয়েছে জানেন? ঘরোয়া পদ্ধতিতে দূর করুন ব্রণের দাগ পিইসি পরীক্ষা শুরু রোববার সৌদি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠকের পরই নারীকর্মীর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত: মন্ত্রী পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি: সোমবার দেশব্যাপী বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচি