artk
শনিবার, অক্টোবার ১৯, ২০১৯ ৬:৫৪   |  ৪,কার্তিক ১৪২৬

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

রোববার, সেপ্টেম্বার ২২, ২০১৯ ১১:৩১

বাংলাদেশের মানবাধিকার নিয়ে কড়া সমালোচনা জাতিসংঘে

media

বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতির কড়া সমালোচনা করেছে এশিয়ান লিগ্যাল রিসোর্স সেন্টার (এএলআরসি)। জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদের ৪২তম নিয়মিত অধিবেশনে বাংলাদেশের সার্বিক অবস্থা তুলে ধরা হয়।

বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতির কড়া সমালোচনা করেছে এশিয়ান লিগ্যাল রিসোর্স সেন্টার (এএলআরসি)। জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদের ৪২তম নিয়মিত অধিবেশনে বাংলাদেশের সার্বিক অবস্থা তুলে ধরা হয়।

এতে বলা হয়, বাংলাদেশে ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৯ সালের ৯ই সেপ্টেম্বর পর্যন্ত গুম করা হয়েছে ৫৩৬ জনকে। বিচারবাহির্ভূত হত্যাকাণ্ড হয়েছে ২১৮৮টি। নিরাপত্তা হেফাজতে নির্যাতনে মারা গেছেন ১২৮ জন। আর খেয়ালখুশিমতো গ্রেপ্তারের শিকার হয়েছেন কয়েক হাজার মানুষ। এ জন্য যারা জড়িত তাদের দেয়া হয়েছে দায়মুক্তি।

এ বিষয়ে মানবাধিকার পরিষদকে গুরুত্ব দিয়ে দৃষ্টি দেয়া উচিত বলে মন্তব্য করা হয়েছে। জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদে এএলআরসির পক্ষে ১৮ই সেপ্টেম্বর এ বক্তব্য উত্থাপন করেন মো. আশরাফুজ্জামান। এএলআরসির এক বিবৃতিতে এসব কথা বলা হয়েছে।

জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদে তিনি বলেছেন, জাতীয় প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধির দাবি দেখে মাঝে মধ্যেই ভুল করছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। যদি জাতীয় প্রবৃদ্ধিই মানুষের বাস্তব জীবনের উন্নয়নের সত্যিকার নির্দেশক হতো, তাহলে কেন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এ দেশের হাজার হাজার তরুণ, যুবক বোটে করে ভূমধ্যসাগর হয়ে তাদের ভবিষ্যতের জন্য ইউরোপের দিকে পা বাড়ায়?

এএলআরসি প্রশ্ন উত্থাপন করে বলেছে, দেশ যদি সবার বাসযোগ্য হয় তাহলে কেন এই দেশটির (সাবেক একজন) প্রধান বিচারপতি, সংবাদপত্রের সম্পাদক এবং মানবাধিকারের পক্ষের কর্মীদেরকে নির্বাসনে থাকতে হয় এবং অন্যদেশে রাজনৈতিক আশ্রয় চাইতে হয়? একটি দেশ যখন দাবি করে তারা গণতান্ত্রিক, তাহলে সরকার কেন ভোটারদের ভোট দিতে বাধা দেয় এবং নির্বাচনের প্রাক্কালে কেন রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানকে ব্যবহার করে ব্যালটবাক্স ভরাট করে? যে ঘটনার মুখোশ মিডিয়া ও ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের মতো অন্য সংগঠনগুলো উন্মোচন করে দিয়েছে।

যদি রাষ্ট্রের মৌলিক প্রতিষ্ঠানগুলো কার্যকর থাকে তাহলে কেন মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার ভিকটিমদের প্রতিকার দেয়ার ক্ষেত্রে বিচার বিভাগের  কোনো প্রচেষ্টা নেই? মিয়ানমারের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জনমানবহীন একটি দ্বীপে পুনর্বাসন করার পরিকল্পনায় সমর্থন না করায় জাতিসংঘের এজেন্সিগুলোকে বহিষ্কারের হুমকি দিয়েছেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী? এসব কি এমন ইঙ্গিত দেয় যে, এই দেশটি জাতিসংঘের সঙ্গে পূর্ণাঙ্গ সহযোগিতা ও তাদেরকে সম্মান করছে? বাংলাদেশের এসব মানবাধিকারের বিষয়ে জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদের গুরুত্ব দিয়ে দৃষ্টি দেয়া উচিত বলে মন্তব্য করা হয়।

বাংলাদেশকে শতভাগ সহযোগিতা করার কথা বললেন সৌরভ আফগানিস্তানে মসজিদে বোমা হামলায় নিহত ৬২ আবারও ব্যর্থ সৌম্য, সেঞ্চুরি বঞ্চিত ইমরুল চোট নিয়েই সাইফের ডাবল সেঞ্চুরি যুবলীগের দায়িত্ব পেলে উপাচার্যের পদ ছেড়ে দেব: ড. মীজান ৩ শতাধিক ভারতীয়কে দিল্লিতে ফেরৎ পাঠাল মেক্সিকো শিশু হত্যা-নির্যাতন বরদাশত করা হবে না: প্রধানমন্ত্রী জাতীয় লিগে বল হাতে ভয়ঙ্কর আবু হায়দার রনি ফের বাংলাদেশ দলকে ব্যঙ্গ করলেন শেবাগ জামায়াতকে তালাক দিয়ে বিএনপিকে রাস্তায় নামার আহ্বান জাফরুল্লাহর বাংলাদেশে পাবজি গেম নিষিদ্ধ তাজরিন ফ্যাশনে ক্ষতিগ্রস্থ শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণের দাবিতে মানববন্ধন ‘আমি মায়ের কাছে যাবো’ সিলেট বিএনপির কমিটিতে কেন্দ্রের হস্তক্ষেপ না করার ওয়াদা তারেক রহমানের ঐক্যের ডাক গ্রামে নিয়ে যেতে হবে: ড. কামাল সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় ২ বাংলাদেশি নিহত ভুল বোঝাবুঝির কারণে সীমান্তে গোলাগুলি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নওয়াপাড়ায় বাসের ধাক্কায় দুই পথচারীর মৃত্যু আবরার দেশপ্রেমিক জনগণের আন্দোলনের মূর্তপ্রতীক: রিজভী ১ মিটার প্রস্থের বাড়ি শাহ আমানতে ১৩০ সোনার বারসহ যাত্রী আটক সাভারে গাড়ির ধাক্কায় যুবক নিহত জবির বিজ্ঞান বিভাগের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ গণভবনে কেন ডাকা হয়নি ওমর ফারুককে পঞ্চগড়ে রাস্তার ধারে ফুটফুটে শিশু ছাত্র রাজনীতি সূর্যের আলো ঠিকরে পড়ে প্রবালে জয়পুরহাটে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১ টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই রোহিঙ্গা নিহত কম বয়সে মেনোপজে বাড়ে হৃদরোগের সম্ভাবনা